写真

হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলো এমবি অনিক খান আশাকরি ছবির গল্প এবং কথাটি শুনে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে অল্প কিছুদিন আগে বাংলাদেশ ইয়েস ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় তারই একটি চিত্র আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি ভিডিওটি দেখে আপনাদের খুবই ভাল লাগবে না কেননা এখানে একটি ছোট্ট মুদিখানার দোকান এবং এখানে একটি গ্রামে একটি মাত্র দোকানে এসে তারা বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটায় এবং সেখানে এখন পানি উঠে গেছে এখন সেই দোকানের উপরে সিটে বসার জায়গা সেই বসার জায়গায় বসে তারা সময় কাটাচ্ছে এখন তাদের খুব দুরবস্থায় এবং সেই অবস্থা দিয়ে ছবি তুলে আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে এবং আপনারা খুশি হবেন
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম এমডি হাফেজ আশাকরি ছবিটির গল্প এবং কথাটি শুনে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে রিলিজ গ্রুপের কিছু ছেলে এক জায়গায় বসে তারা নিজের কাজে ব্যস্ত আছে এবং আজকে বাংলাদেশের বৃষ্টি হয়েছে এবং সেই বৃষ্টির জন্য সবাই এক জায়গায় বসে তারা বিনোদন নিচ্ছে এবং একে অন্যকে কাজের পরামর্শ দিয়েছেন তারা এখনো বসে কাজ করেছে এবং খুবই আনন্দের সাথে এবং এটি খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে আমাদের সাতক্ষীরা জেলা এবং নিয়ে সবাই খুশি এবং খুবই আনন্দিত এবং আজকের সাতক্ষীরা জেয়ালা গ্রামের ছেলেরা মিলে একসাথে তারা এই দোকানে বসে আনন্দ করছি এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশাকরি ছবিটি দেখে আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল এমডি অনিক খান আশাকরি ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটি গোল শের দোকান এবং এখানে ঘোষ বিক্রি করে থাকে এবং সুস্থ মানের ঘোষ বিক্রি করে থাকে এইজন্য এখান থেকে মানুষ প্রচুর পরিমাণ বয়স প্রায় পড়ে থাকে কেননা সেখানে তারা ভালো মানের বয়স্ক এবং তারা ভালো মানের পোস্ট পেয়ে তারা সুস্থ হলে এখান থেকে কিনতে পারে এবং এখানে প্রতি 1 কেজি ঘোষের দাম সাড়ে 500 টাকা এজন্য এখানে প্রচুর পরিমাণ বেচাকেনা হয় এবং সুস্থ আইডি গরু জবাই করে তারপর বিক্রয় করা এবং গত কয়েকদিন আগে এই ছবিটি আমার দেওয়া কথা ছিল এই পোস্টে কিন্তু আমি দিতে পারি নাই কাজের চাপ এবং এর আগের দিনের ছবি যেহেতু ঈদ আনন্দে মানুষ খেয়ে থাকে এবং সব পরিবারের খেয়ে থাকে তা তারা বিভিন্ন ধরনের খেয়ে থাকে কেননা কেউ কেউ পোল্টির ঘোষ খায় ছাগলের ইত্যাদি ইত্যাদি ধরণের খেয়ে থাকে এবং তাদের চলতে হয় এবং এই ঘোষের দোকানে প্রচুর পরিমাণে হয় এবং এখানে একটি গরু জবাই করে তারপর সেখানে ঝুলিয়ে রেখেছে বিক্রি করার জন্য এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলো এই এমডি মনির খান আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে দেখা যাচ্ছে মোটরসাইকেলে এখন বাজারের দিকে রওনা দিয়েছে আশাকরি ছবিটির গল্প এবং কথাটি শুনে আমাদের খুবই ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে এসব গুলো ফিরিয়ে দিয়েছিল সে মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছে এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে কেননা ছবিতে দেখা যাচ্ছে তার থেকে একটি গেঞ্জি এবং সেই মুহূর্তের ছবি তোলা হয়েছে এবং বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের ছেলেদের মেয়েদের একটু সুবিধা হয়েছে কেননা যারা স্টুডেন্ট তাদের করার কোন পদ্ধতি থাকে না এবং একটি কাজ এইখান থেকে কিছুটা হলেও বের করতে পারে এবং সেই দিয়ে তাদের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে যায় এবং আরো মা-বাবার কাছ থেকে কোন টাকা চাওয়া লাগে না এইজন্য বলল যে আমরা ধন্যবাদ জানাই যাদের দেওয়ার জন্য সুন্দর একটি কাজ দিয়েছে দেশটির জন্য খুবই সুন্দর একটি কাজ এবং এই কাজ করে তারা খুবই ভালভাবে চলতে পারছে এই জন্য আমরা খুবই খুশি আশাকরি ছবিটিতেও আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে দেখা যাচ্ছে ভাত খাওয়ার ft30 এবং বাঙালি মাছ মানে মাছে ভাতে বাঙালি এবং সেই মাছে ভাতে বাঙালি একটি ছবি নিয়ে আপনাদের মাঝে মাঝে বেঁচে থাকবে কেননা বাংলাদেশের অধিকাংশ সময়ই তারা আমাকে তাদের জন্য তাদের মনের চাপ এবং অভাব পূরণ হয় না এবং তারা প্রতিনিয়ত প্রতি সাজে ভাত খেয়ে থাকে এবং ভাতের সাথে তারা মাছ খেয়ে থাকে এবং তারা মাছে ভাতে বাঙালি এটাই তাদের প্রমাণ এবং সেই পরমাণু একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি ছবিটি দেখে আমাদের খুবই ভাল লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম অনির খান ছবিটি দেখে আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেন না এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটি দোকানে মাল এনে সেই দোকানের মাল সাজাচ্ছে এবং তারা দুজন মিলে তাদের দোকান সাজিয়ে রেখেছে তাদের বিশাখানা করার জন্য এবং সেই মুহূর্তের একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা পড়ে ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে এবং আমাদের হাটখোলা পুরাতন একটি নাম এবং এই হাটখোলায় এই দোকানগুলো হয়েছে এবং এই দোকানগুলো সুন্দর এবং এখানে দোকানে বেচাকেনা করে তাদের সংসার এবং আরো ইত্যাদি ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করে থাকবে এবং এখানে এবং এখানে এবং এখানে সকল প্রকার পণ্য পাওয়া যায় এইজন্য এখানে এসে তাদের পণ্য পড়ে যায় এবং তাদের পুনরায় থেকে দোকানদার টাকাও পায় এবং লাভের টাকা দিয়েছে তার সংসার এবং আরো ইত্যাদি ইত্যাদি কাজে লাগিয়ে থাকে আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হলো খুবই ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম অনিক খান আশাকরি ছবির গল্প এবং কথাটি শুনে এবং ছবিটি দেখতে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি পার্কের ভিতর অনেকগুলো মুক্তি এনেছে এবং এই আঁখি রাখার উদ্দেশ্য হলো তারা এখানে বেশিরভাগ মানুষই ঘুরতে আসে প্রেমিক-প্রেমিকা এবং তাদের উদ্দেশ্য করে তারা এখানে কিছু মুফতি আগলে রেখেছে যাতে বুঝতে পারে যে ভালোবাসা কেমন হয় এবং কিভাবে হয় এবং একে অন্যকে কিভাবে ভালবাসতে হয় এবং সেই জন্য এই পার্কের ভিতর অনেকগুলো মুক্তি এনেছে বাকি রেখেছে যাতে বুঝতে পারে যে একে অপরের ভালবাসার নাম কি এবং একে অপরকে ভালবাসতে হবে কিভাবে এবং এখানে এভাবে বানিয়ে রেখেছে যাতে মানুষের মনের ভিতরে যেতে পারে এবং মানুষ মানুষকে বুঝতে পার এবং একে অন্যকে ভালবাসতে হয় তারই কিছু মুক্তি বানিয়ে রেখেছে এবং এই পার্কের ভিতর অনেক পর্যটক এবং মানুষের পড়তে আসে এবং তারা জানে যে তুমি অনেক সুন্দর সুন্দর মূর্তি বানিয়ে রেখেছে এবং সেটা একটা উদ্দেশ্য করে এবং সে উদ্দেশ্যটা বোঝার জন্য তারা এখানে ঘুরতে আসেন দেশে অনেক মজা করে তোকে আনন্দ হয় এবং সেই ছবিটি আপনাদের মাঝে তুলে ধরলাম আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল এমডি অনিক খান আশাকরি ছবিটির গল্প এবং কথাটি শুনে খুবই ভালো লাগলো না এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে অনেক উঁচু তার উপরে একটি পাহাড় এবং সেই পাহাড়ের উপরে একটি একটি পাথর আছে এবং সেই পাথরের তারা কিছু দিয়ে পড়ে তাদের মধ্যে এবং তাদের পূজা করার জন্য একটি মন্দির বানিয়েছে এবং এখানে উঠে তারা তাদের ভগবানের কাছে প্রার্থনা করে থাকে যাতে তাদের সংসারে সুখ শান্তি আসে এবং তাদের মনের আশা পুরন হয় এইজন্য তারা এই পাহাড়ের উপরে উঠে তাদের ভগবানের কাছে তারা মানত করে থাকে এবং এই পাহাড়ে উঠতে গেলে অনেক কষ্ট হয় তবুও তারা এই কষ্টের কথা না ভেবে তারা এত উচ্চতায় ওঠে এবং তাদের মনের বাসনা পূরণ করার জন্য এবং উচ্চতার উপরে উঠে তারা তাদের মন্দিরে এসে মনের বাসনা পূরণ করার জন্য তাদের ভগবানের কাছে মানত করে থাকে এবং সেখানে পড়ে যায় এবং তাদের চাওয়া পাওয়ার কথা তাদের ভগবানের কাছে বলে যাই তাতে তাদের পরবর্তীতে চাওয়া-পাওয়া পূরণ হয় এটাই তারা মনে করে এবং এটাই তাদের নিয়ম নীতি এবং এই জন্য তারা এই পাহাড়ের উপরে উঠে তাদের ভগবানের কাছে প্রার্থনা করে থাকে যাতে তারা ভবিষ্যতে ভালোভাবে চলতে পারে এবং ভালো থাকতে পারে এবং এই পাহাড়ে উঠতে গেলে অনেক কষ্ট হয় এবং সেই পাহাড়ের মন্দির ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরার পাশাপাশি ছবিটি অনেক ভালো লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং খুবই সুন্দর আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশা করি ছবিটি দেখে এবং ছবিটির গল্প শুনে আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা গতকাল শুক্রবার 14 তারিখ আমাদের বাংলাদেশে ঈদ উদযাপন হয়েছে এবং এটি বাংলাদেশের মুসলমানদের ঘরে ঘরে জন্য আনন্দের বন্যা বয়ে আসে এবং সেই আনন্দ তারা বিভিন্ন জায়গায় উপভোগ করে এবং তারা বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যায় এবং এটা হল আজকের ছবি এবং তারা কালকে ঈদ হয়ে গেছে এবং আজকে তারা বাড়ি থেকে বের হয়ে কক্সবাজারে ঘুরতে আসা পর্যটকরা এবং সেটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে খুশি এবং আনন্দময় হয় তাহলে তো আর কথাই নেই এবং এখানে অনেক জায়গা থেকে অনেক পর্যটক আসে এই জায়গাটিতে ভোগ করার জন্য এবং সেই আনন্দ দিয়েই আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম অনিক খান আশাকরি ছবিটিতে ভাই আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে কত সুন্দর একটি মুদিখানার দোকান এবং এখানে সকল প্রকার পণ্য পাওয়া যায় এবং এই দোকানের সামনে শত দেখা যাচ্ছে কত প্রকারের ফটোটা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে এবং চানাচুর জীবনে পড়া যায় এই দোকানটি খোলা আছে এবং এর দোকানের সামনে রাখলে এবং সেখানে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে এবং এই দোকানটি অবস্থিত সাতক্ষীরা জেলা থেকে 4 কিলোমিটার যেতে হয় দুনিয়ার বাজারে বাজারে অবস্থিত এই দোকানটি এবং এটি খুবই সুন্দর দেখাচ্ছে এবং দোকানের সামনে ঝুলিয়ে রেখেছে যাতে মনে হয় দোকানের জন্য সুন্দর করে সাজিয়ে রেখেছে এবং সেই দোকানের একটি ছবি আপনাদের মাঝে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে ঈদের শুভেচ্ছা নিয়ে এবং ঈদের একটি নতুন নিউ ছবি নিয়ে আপনাদের মাঝে হাজির হলাম অনিক খান আশাকরি ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে দীর্ঘ একমাস রোজা করে মুসলমানরা আজকে তাদের রোজার ঈদ এবং এই দিনে তারা মুক্ত ঘরে এসে তাদের নামাজ আদায় করছে এবং সেই মুহূর্তের একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে অনেকগুলো মুসল্লিদের নামাজ পড়তে এসেছে এবং আজকে মুসলমানদের বছরের একটি সবচাইতে বড় আনন্দের দিন আজকে ঈদ এবং এই দিয়ে তারা প্রচুর পরিমাণ মার্কেট করে থাকে নতুন জামাকাপড় কিনে থাকে এবং তাদের পরিবারের সবার জন্য কিনে থাকে এবং তারা বিভিন্ন রকমের পায়েস এবং বিভিন্ন রকমের লুডুস রান্না করে খায় এবং ভালোমন্দ খেয়ে থাকে এবং মুসলমানদের ঘরে ঘরে জন্য মুসলমানদের ঘরে ভরে যাচ্ছে এবং সেই আজ এবং সেই মুসলিম একসাথে এক জায়গায় নামাজ পড়ছে এবং নামাজ শেষে তারা একে অন্যের সাথে কোলাকুলি করে তাদের বাড়ি গিয়ে সেমাই খেয়ে তারা বাড়ি ফিরে যাবে এটাই হল মুসলমানদের ঈদ এবং সেই ঈদের নামাজে চিত্র নিয়ে ছবিটি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে ঈদের দিন হাজির হলাম আশা করি ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভাল লাগবে কারণ এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি লোক সাইকেলে করে তার পরিবারের জন্য স্কিনের জন্য গিয়েছিল এবং সেখানে তার বাড়ির দিকে ফিরছি এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হলো আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে কেননা ঈদের দিন মানুষ একটু ভাল মন্দ খাওয়ার চেষ্টা করেন তাই সে গরীব বা বড়লোক হোক ঈদের দিন একটু ভাল মন্দ খেতে মন চায় তাই সে কি সাইকেলে করে গরুর মাংস কিনতে যায় এবং সে গরুর মাংস কিনে নিয়ে বাড়ি আসে এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে ভালো লাগবে এবং এই রাস্তাটি দেখতেও খুব সুন্দর লাগছে দেখতে খুব সুন্দর এবং এই রাস্তা দিয়ে তার পরিবারের জন্য রান্না করে খাবে ঈদের খুশিতে তারা একটু ভাল মন্দ খেতে চাই এবং সেই জন্য সে মাংস কিনতে গিয়েছিলাম কিনে নিয়ে এসেছে এবং সেরা পরিবারের সবাই মিলে আজকে দুপুরে রান্না করে খাবে এবং তাদের আত্মীয়-স্বজন আছে এবং তাদেরকে নিয়ে যারা মত করে বছর এই দিনটায় হয়ে যায় এবং সেই দিনটার নাম হল ঈদ আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশাকরি ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি জুতো সেলাই করা এবং যুদ্ধ করার দোকান এবং এই জুতো সেলাই করে তার দিনমজুরি চলে যায় এবং এভাবেই তারা প্রায় 40 বছর পেরিয়ে এসেছে এবং সেখানে একটি ছবি আপনাদের আপনাদের খুবই ভালো লাগে খুবই অপছন্দের কাজ আমাদের সমাজে এমন কাজ করে থাকে কেননা এমন মানুষ আছে তাদের সামর্থ্য থাকে না এবং তাদের জন্য এই লোকগুলোর প্রয়োজন এবং তারা এখানে বসে জুতা সেলাই করে তাদের রুজি উপার্জন করে থাকে এবং এখনও ঈদের সময় তারা জুতোসেলাই অথবা রং করে থাকে এবং এখন তাদের এখানে প্রচুর পরিমাণ ফিল্ম মানুষ তাদের রং করার জন্য নিয়ে আসে খান এবং রং করে নিয়ে যায় যাতে নতুন পুরাতন জুতা নতুন হয়ে যায় এবং তার আনন্দ করতে পারে এবং সেই আনন্দটা যেন সবাই বুঝতে না পারে এটা পুরাতন জুতা এবং এজন্য তারা রং করার জন্য এখানে আসে এবং তার আনন্দগুলো করে থাকে এবং সেই জুতোর দোকানের একটি চিত্র আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল অনেকখান আশাকরি ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে সাতক্ষীরা জেলা খাদ্য অধিদপ্তর এখানে শুধুমাত্র সাতক্ষীরা জেলা খাদ্য অধিদপ্তর থেকে মানুষের খাদ্য এবং খাদ্য পরিবেশন করে থাকে সরকারিভাবে এবং এইখানেও লতা রবে সেখানে একটি স্যাটেলাইট সিস্টেম করা হয়েছে 24 ঘন্টা ইটিভি চলতে থাকে এবং মানুষের উন্নয়ন কিভাবে হয় তার একটি ভিডিও এখানে আপলোড করে থাকে এবং তার প্রতি ক্ষণে ক্ষণে এটা প্রচার করে থাকে এবং সেই গেটের একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের এই ছবিটি দেখে খুবই ভাল লাগবে কেননা এখানে কৃষিখাতে মানুষ কিভাবে লাভবান হতে পারে এবং স্থায়ী প্রচার করে থাকে প্রতিনিয়ত এবং প্রতিদিনই এবং 24 ঘন্টায় চলতে থাকে এবং এটা চলবে এমন ভাবেই স্যাটেলাইট তৈরি করা হয়েছে এবং এই সাতক্ষীরা জেলা খাদ্য দপ্তর অফিস থেকে এখানে মানুষের কৃষিকাজে সহযোগিতা করে থাকে এবং পরামর্শ দেয়া থাকে এবং তার একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হলো আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম অনিক খান আশা করি এই ছবিটি দেখে আপনাকে খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে রমজান মাসে তারা ঘরে দুখের মাঝে বিলিয়ে দেয় এবং আজকে 28 28 তারিখের মানুষের ভিতরে ঢুকিয়ে দেবে এবং আপনাদের মাঝে তুলে দেখা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে যদিরমজান মাসে কেউ যদি একটি রোজাদার ব্যক্তিকে যে মুসলমান ধর্মে তার অনেক সওয়াব হবে এমনটাই জানা যায় মুসলমান ধর্মের কুরআনে এবং সেই জন্য তাড়াতাড়ি দিয়েছে মানুষের দ্বারে দ্বারে এবং তাড়াতাড়ি তৈরি করা এবং সেই মুহূর্তের কিছু ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম অনিক খান আশাকরি ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবেকেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি সেন্টারিং এর কাজ করা এবং ছাদ এবং ছাদের কাজ সেন্টারিং এর কাজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে এবং সে আজকে ছাদের উপরে বীমের রড বাধা এবং সেই বীমের রড বান্দা প্রায় শেষ কিন্ত সে দুপুরে টিফিনের সময় এসে টিফিন করে এসে ছায়ার নিচে একটু বসে নিচে এবং সেই সমাজের একটি ছবি তুলে আপনাদের মাঝে দেওয়া হচ্ছে আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটি যে ছোট বাচ্চাকে দেখতে পাচ্ছেন সে খুবই গরীব মানুষ এবং তাকে শুধুমাত্র বোঝানোর জন্য কাজ করতে হয়পারে এবং এ কাজ করে তারা অভ্যস্ত হয়ে গেছে এখন আর তার কোনো সমস্যা হয় না
হাই বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল এমডি অনেকক্ষণ আশা করি এই ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভাল লাগবে এবং এই ছবিটির গল্প শুনে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে সাতক্ষীরা জেলায় অবস্থিত সাতক্ষীরা জেলা স্টেডিয়াম এবং তারই একটি গেটের ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি এই ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা সাতক্ষীরায় শুধুমাত্র একটাই এবং সাতক্ষীরা জেলা স্টেডিয়ামে ক্রিকেট খেলা ফুটবল খেলা আরো ইত্যাদি ইত্যাদি খেলা করে থাকে এবং এই সাতক্ষীরা জাতীয় স্টেডিয়ামে তারা প্রতি বছর ক্রিকেট খেলা ফেলা এবং এই ক্রিকেট খেলা খুবই জনপ্রিয় এবং এই ক্রিকেট খেলায় সাতক্ষীরা জেলার অনেক তরুণ-তরুণীরা এখানে খেলায় অংশগ্রহণ করে এবং এইখান থেকে খেলায় অংশগ্রহণ করে তাদের বাসায় পর্ব এবং তারপর তাদেরকে খুলনায় নিয়ে ক্রিকেট খেলা না হয় তারপর সেখান থেকে তাদের জাতীয় দলে একটা জায়গা করার সুযোগ থাকে এবং এটা শুধুমাত্র শুরু হয় সাতক্ষীরা জেলা স্টেডিয়াম থেকে এবং সেই জেলা স্টেডিয়াম এর চিত্র আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি এই চিত্রটি দেখে আপনাদের খুবই ভাল লাগবে এবং এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে জাতীয় স্টেডিয়াম সাতক্ষীরা এবং এই থেকে সামনে একটি কোন পথ দিয়ে সামনে গেলে পাওয়া যাবে যে তোমারটা একটি ভেতরে এবং বাইরে করেছে যাতে মানুষ দেখে চিনতে পারে এটা সাতক্ষীরা জেলা স্টেডিয়াম এবং সেই স্টেডিয়াম এর ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে এই ছবিটি দেখে

動画