写真

এই যে বাজারের ছবিটা দেখতে পাচ্ছেন বন্ধুরা এটা খুলনা বিভাগের ডুমুরিয়া উপজেলার কাঠালতলা বাজার খুবই অসাধারণ এই বাজার টা দিন দিন বাজার টা যেন বিশাল জাঁকজমকপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে বাজারে প্রচুর পরিমাণ লোকসমাগম বাড়তে থাকে খুবই অসাধারণ এই বাজারের সুন্দরী সন্ধ্যার পরে আলোর সজ্জায় সজ্জিত এই বাজারের ছবিটা সবার চোখে পড়ার মতো খুবই অসাধারণ এবং দৃশ্যমান এই বাজারে তাই বন্ধুরা এই ডুমুরিয়া উপজেলার কাঠালতলা বাজার এর সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য চোখে পড়ার মতো দৃশ্যমান সৌন্দর্য তাই নিশ্চয়ই তোমাদের এই ছবিগুলো খুবই পছন্দ হয়ে থাকবে তাই তোমাদের যদি এই ছবিগুলো হয়ে থাকে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবা আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করবা তাই খুলনা বিভাগের ডুমুরিয়া উপজেলার কাঠালতলা বাজার এর সন্ধ্যার পরে দোকানপাট বিল্ডিং মার্কেট রাস্তা কতইনা অসাধারণ দেখতে খুবই দৃশ্যমান তাই রাতের আধারে আলোয় আলোকিত দৃশ্যগুলো চোখে পড়ার মতো তাই নিশ্চয়ই তোমাদের এই ছবিটা ভালো লাগে তাই তোমাদের যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবা আর আমার এখানের টা সাবস্ক্রাইব করুন
ছবিগুলো একটি রাস্তার ছবি খুবই অসাধারণ এই রাস্তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ছবিগুলো তাই আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ একটি রাস্তা এটা তাই বন্ধুরা আমাদের সাতক্ষীরা শহর থেকে প্রায় 10 কিলোমিটার দূরে থেকে গোবিন্দপুর যাওয়ার জন্য একটি রাস্তা গোবিন্দপুর মাঝখানের এই রাস্তাটা আমাদের কাছে খুবই প্রিয় আমি পড়ন্ত বিকালে সাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় এই রাস্তার ছবিগুলো তোলা হয়েছিল দেখতে পাচ্ছেন রাস্তায় অনেকগুলো যানবাহন চলাচল করছে যেমন মোটর সাইকেল সাইকেল কত কিছুই না এই রাস্তায় তাই আমি সাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় এই কয়েকটা ছবি তুলেছিলাম ফটোগ্রাফি টা খুব অসাধারণ ফটোগ্রাফি হয়েছে তাই নিশ্চয়ই তোমাদের এই ফটোগ্রাফি জন্য ছবিটা খুবই ভালো লাগে তাই বন্ধুরা দেখতে পাচ্ছেন এই ছবিতে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আছে আকাশের আকাশ নীল আছে এবং রাস্তার সাইডে গাছ গাছরা কালবাট কতই না কিছু দেখা যাচ্ছে এই ছবিগুলো ছবিগুলো এবং অসাধারণ এই ছবিগুলো খুবই ভালো লাগবে
ডুমুরিয়া উপজেলার নতুন রাস্তা বাজার থেকে এই ছবিটা তোলা হয় সন্ধ্যার পরে যখন বাজারে বন্ধুরা একসাথে আড্ডা দিতে গিয়েছিল তেমনি সময় এই ছবিটা তোলা হয় বাজারের রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছবিটা একটি অসাধারন এবং দৃশ্যমান নিশ্চয়ই আপনাদের এই নতুন রাস্তার ছবি ভাল লাগবে কারণ নতুন রাস্তা বাজারের দোকানপাট রাস্তার সাইডে গাড়ি ঘোড়া এবং কত কিছুই আছে তাই আলোর সজ্জায় সজ্জিত আর বিভিন্ন কালারের লাইটিং করা এই নতুন রাস্তার এর ছবিটা আমার কাছে খুব প্রিয় উপজেলার নতুন রাস্তার বাজার খুবই অসাধারণ এবং খুবই দৃশ্যমান তাই বন্ধুরা আপনাদের খুবই ভালো লাগবে এই নতুন রাস্তার ছবি ভালো লাগলে অবশ্যই আপনারা এই নতুন রাস্তা বাজারে বাজার করে যাবেন এখানে সন্ধ্যার পরে আলোকসজ্জায় সজ্জিত রাস্তাগুলোর দৃশ্য খুবই ভালো লাগে তাই ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট কর আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করবেন
একটি গ্রামে যাওয়ার জন্য দুইটি রোড করা হয়েছে খুবই অসাধারণ ভাবে এটা একটি অসাধারণ কারণ ডুমুরিয়া উপজেলার 6 নং মাগুরা ইউনিয়নের এই একটিমাত্র গ্রাম এই গ্রামের যাওয়ার জন্য কি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের রোড তৈরি হয়েছে কারণ বন্ধুরা এই যে ছবিটা আপনারা দেখতে পাচ্ছেন এই ছবিটা একটি অসাধারন এবং দৃশ্যমান ছবি দেখতে পাচ্ছি না একজন মানুষ সাইকেল চালিয়ে যাচ্ছেন কিন্তু তার সামনে একটি বটগাছ রয়েছে এই বটগাছ তার বয়স প্রায় 70 বছরের প্রথম একটি বটগাছের নিচে রাস্তার মানুষ যখন যায় তখন এখানে ছাউনিতে থেকে যায় তাই সবসময় ছবিটা যেন হঠাৎ একটি দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে কতইনা অসাধারণ এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং আরো ছবি আছে দেখতে পাচ্ছেন একটি তাল গাছে তাল গাছের জন্য আলোকসজ্জা অসাধারণ ডিজাইন হয়েছে তাই মাগুরা ইউনিয়নের এই রাস্তা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুবই দৃশ্যমান খুবই অসাধারণ তাই নিশ্চয়ই তোমার এই ছবিগুলো ভালো লাগবে ভাল লাগলে অবশ্যই আপনি আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে ওয়ালপেপারে সেট করে নিতে পারেন অসাধারণ দৃশ্যমান একটি ছবিটা
এইযে নদীটা দেখতে পাচ্ছেন বন্ধুরা এটা একটি অসাধারণ নদী এই নদীর একবারে ডুমুরিয়া থানা আর আর একপাশে বটিয়াঘাটা থানা তাই দুই থানার মাঝখানের মেলবন্ধন হয়েছে একটি নদী দিয়ে নদীর নাম একটি অসাধারন এই নদীর নাম আমরা বলে থাকি কর্ণফুলী নদী কর্ণফুলী নদী আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ এই নদীতে বিশাল বড় বড় মাছ রয়েছে এবং বিশাল বড় বড় হাঙ্গর এবং কুমির রয়েছে এবং এই নদী দিয়ে অনেক বড় বড় জাহাজ লঞ্চ কার্গো বিমান চলাচল করে খুবই অসাধারণ তাই ওপারে বটিয়াঘাটা এপারে ডুমুরিয়া থানার মাঝখানের মেলবন্ধন হয়েছে একটি নদী দিয়ে তাই এই দুইটা ছবি আপনাদের সামনে তুলে ধরেছে এটা কর্ণফুলী নদীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নদীর পানি আকাশের আকাশ নীল আসমান অসাধারণ ছবি তাই খুলনা বিভাগের এই দুই থানায় মেলবন্ধন মাঝখানে একটি নদীর মত দৃশ্য কতইনা অসাধারণ এবং দৃশ্যমান এই ছবি থেকে একটা ছবি যদি আপনার পছন্দ হয়ে থাকে আপনি আপনার মোবাইলের স্ক্রিন ওয়ালপেপার সেট করে দিতে পারেন খুবই অসাধারণ এবং দৃশ্যমান একটি ছবি
এটা একটি খেয়াঘাট এই নদীর উপর দিয়েই এপার থেকে মানুষেরা ওপারে চলাচল করে থাকে এই খেলাটির নাম লতাবুনিয়া নদীর উপর দিয়ে বয়ে চলা ধানিয়া গ্রামের খেয়াঘাট খুবই অসাধারণ এই গ্রামের আমাদের কাছে খুবই প্রিয় অসাধারণ এটা ডুমুরিয়া উপজেলার 10 নম্বর ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের একটি খেয়াঘাট কারণ 10 নম্বর ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের খেয়াঘাট আমাদের কাছে খুবই প্রিয় দেখতে পাচ্ছেন এই লতাবুনিয়া নদীতে যাওয়ার জন্য একটি ইটের সলিং রাস্তা তৈরি করা হয়েছে খুবই অসাধারণ ভাবে এই রাস্তার দৃশ্য বন্ধুরা নিশ্চয়ই তোমাদের এই খুলনা বিভাগের প্রান্তিক অঞ্চল মানুষেরা এবং এই অঞ্চলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুবই অসাধারণ এবং মুখ রঞ্জন করে থাকে কারণ আজকের মানুষেরা আমরা খুবই পর্যটকদের জন্য বিভিন্ন স্থানে দর্শনীয় স্থান করে থাকি তার ভিতরে নিয়া নদীর উপরে এই দৃশ্যটা তাই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর খেয়া ঘাটের দৃশ্য নৌকা চলাচল দৃশ্যমান ডুমুরিয়া উপজেলার 10 নম্বর ভান্ডার পাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ছবি অসাধারণ তাই সব মিলিয়ে দৃশ্যমান আর এই নদী নদীর সামনে দৃশ্যগুলো এর ক্যামেরায় ধরা পড়া কয়েকটা গাছের ছবি সবগুলো দৃশ্যমান নিশ্চয়ই ভালো লাগবে ভাল লাগলে অ বশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন তার আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করবেন
নদীটা একটি অসাধারণ নদী প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অসাধারণ এই নদীর নাম লতাবুনিয়া নদী নদী আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ কারণ লতাবুনিয়া নদীটা আমরা পছন্দ করে থাকি এটা বাংলাদেশের দক্ষিণবঙ্গের খুলনা বিভাগের ডুমুরিয়া উপজেলার একটি অজ পাড়াগাঁয়ের কোল ঘেঁষে বয়ে চলা এই লতাবুনিয়া নদী তাই খুব বেশি তাই খুব অসাধারণ এই দৃশ্যটা তাই বন্ধুরা নিশ্চয়ই তোমাদের এই নদীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং নদীর স্রোতের মতো ভেসে যাওয়ার দৃশ্য গুলো খুবই অসাধারণ এবং দৃশ্যমান তাই নিশ্চয়ই তোমাদের এই ডুমুরিয়া উপজেলার লতাবুনিয়া নদী টা খুবই ভালো লাগবে কারন আমার কাছে খুবই অসাধারণ লেগেছে তাই বন্ধুরা এই লতাবুনিয়া নদী এবং নদীর পানি নৌকাগুলো থৈথৈ করা পানির ঢেউ আর আকাশের হালকা রোদের আকাশ নীলের দৃশ্যটা কতইনা দৃশ্যমান তাই সব মিলিয়ে ছবিটা আমার কাছে অসাধারণ এবং খুবই ভালো লেগেছে তাই বস আপনি যদি পছন্দ হয়ে থাকে আপনি আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে ওয়ালপেপার সেট করে নিতে পারেন খুবই অসাধারণ এবং দৃশ্যমান একটি ছবি
অসাধারণ একটি গির্জার ছবি আপনাদের সামনে তুলে ধরছি এই গির্জা বলা হয় বাংলাদেশের এক ধর্মের মানুষ আছে তাদেরকে আমরা বলে থাকি খ্রিস্টান ধর্ম তাই এই খ্রিস্টান ধর্মের মানুষেরা এই গির্জায় তাদের উপাসনা করে থাকে ধ্যান-জ্ঞান সবকিছুই এই গির্জার ভিতরে উপাসনা করে খুবই অসাধারণ এই গির্জার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুলনা বিভাগের চুকনগর এলাকার কাঠালতলা গ্রামের পাশেই অবস্থিত খুবই অসাধারণ পরিবেশ ডিজাইন গুলো খুবই অসাধারণ করে গড়ে তোলা হয়েছে বাংলাদেশ একটি মুসলিম ক্রান্টি তাই এখানে সব ধর্মের মানুষেরা সব ধর্মের মানুষেরা এখানে একসাথে বসবাস করে তাই বলুন হিন্দুধর্ম অথবা বৌদ্ধ ধর্ম খ্রিস্টান ধর্ম যে কোন ধর্মের মানুষ সবাই একসাথে এখানে ওঠাবসা করে কোন বিধান নাই সমস্ত ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে একসাথে আনন্দ উৎসব করে থাকে তাই এই যে খ্রিস্টান ধর্মের গির্জার ছবি আপনাদের সামনে দিচ্ছি এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুবই অসাধারণ তাই খুলনা বিভাগের তালা থানার ভিতরে একটি অসাধারণ এই জায়গায় অবস্থিত এই গ্রামের নাম কাঠালতলা গ্রাম এই কাঠালতলা গ্রামের পাশেই অবস্থিত তাই সব মিলিয়ে ছবিটা অসাধারণ আপনার যদি এই ছবিটা পছন্দ হয়ে থাকে আপনি আপনার মোবাইলে স্কিন ে এই ছবিটা তুলতে পারেন এবং সেট করতে পারেন খুবই অসাধারণ এবং এমন একটি গির্জার ছবি নিশ্চয়ই তোমাদের ভালো লাগবে
এইযে বেঙ্গল ডাইরেকশন এটাকে আমরা বলে থাকি ইঞ্জিনভ্যান খুবই অসাধারণ এই ভ্যানগাড়ি করতে প্রচুর পরিমাণ শক্তি ক্ষমতা রয়েছে আমাদের গ্রাম থেকে গাছগুলো কেটে বাজারে নিয়ে বিক্রি করার জন্য এই ইঞ্জিনভ্যান গুলো আমরা ব্যবহার করে থাকি খুবই অসাধারণ এই প্রযুক্তি তাই দেখতে পাচ্ছি না একজন ভ্যান এর ড্রাইভার ইঞ্জিন ভ্যান গাড়িতে কাঠ লোড দিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বাজারে বিক্রি করার জন্য রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার ওপর থেকে ছবিটা তোলা হয়েছিল খুবই অসাধারণ তাই ইঞ্জিনভ্যান এর ছবি আর এই চালকের আসনে বসা ছেলেটার ছবি খুবই অসাধারণ লাগছে তাই নিশ্চয়ই আপনাদের এই ইঞ্জিন ভ্যান চালানো ছবিটা খুবই ভালো লাগবে তাই আপনাদের যদি এই ছবিটা ভালো লেগে থাকে অবশ্যই লাইক কমেন্ট করবেন আর আমার চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করবেন এই জিনিসটা দেখতে পাচ্ছেন কার্ড আছে এটা আমাদের সাতক্ষীরা জেলা থেকে প্রায় 10 থেকে 12 কিলোমিটার দূরে গোবিন্দপুর গ্রামের একটি ইটের সলিং এর রাস্তার ছবি খুবই অসাধারণ রাস্তা রাস্তার মাথায় পিছিয়ে রয়েছে এটা একটা খুবই অসাধারণ এই তিন রাস্তার মুখের ছবিটা তাই বন্ধুরা আপনাদের এই ইঞ্জিন ভ্যান চালক এবং এই চালকের আসনে বসার জন্য এ ই ছবিটা খুবই অসাধারণ নিশ্চয়ই তোমাদের ভালো লাগবে ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক করুন
নদীর কুল গাছে ঘেরা গাছপালা আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখলে মনে হয় বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনের মতই লাগে কারণ নদীর বহন কাজ ছাড়া অন্য কোথাও দেখা যায় না কিন্তু এটা আমরা বলে থাকি আমাদের মিনি সুন্দরবন সুন্দরবনের মতো দেখতে তাই আমরা এটাকে বলে থাকি মিনি সুন্দরবন এটা আমাদের বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া গ্রামের গেছে বয়ে চলা ছোট্ট একটি নদী তাই এই গুটুদিয়া গ্রামের কোল ঘেঁষে বয়ে চলা ছোট্ট একটি নদীর সাইডে এত সুন্দর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য একটা দেখার মত একটি দৃশ্য তাই বন্ধুরা মিলে সুন্দরবন নামে আমরা এটাকে আখ্যায়িত করেছে নদীয়ার নদীয়ার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য গাছ গাছরা
আকাশের আকাশ নীলা আর আকাশে সাতরঙা রংধনুর সাজিয়ে ছবিটা যেন আরও উজ্জ্বল করে গড়ে তুলেছিল তাই গ্রামের ঘেঁষে বয়ে চলা গুটুদিয়া গ্রামের ঘেঁষে বয়ে চলা এই মিনি সুন্দরবন আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ একটি ছবি তাই সব মিলিয়ে ছবিটি দৃশ্যমান এবং অসাধারণ নিশ্চয়ই তোমাদের ভালো লাগবে আর ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করুন
এই যে ব্রিজটা দেখতে পাচ্ছেন বন্ধুরা এটাকে বলা হয় গুটুদিয়া ব্রিজ খুবই অসাধারণ এই ব্রিজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এটা হরিনা থেকে খুলনা যাওয়ার জন্য এই গুটুদিয়া ব্রিজের উপর দিয়েই যেতে হয় তাই ডুমুরিয়া থেকে খুলনা যাওয়ার মধ্যকার এই জায়গাটার নাম গুটুদিয়া ব্রিজ তাই এই ব্রিজটা দেখলে যেন প্রাণটা জুড়িয়ে যায় মেইন রোডের উপরে এতো সুন্দর একটি ব্রিজ চোখে পড়ার মতো কারণ বন্ধুরা আমাদের কাছে প্রিয় হয়ে রাস্তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর এই ব্রিজের ছবি এবং সাইটের আকাশ নীল 10 সময় একটি দৃশ্যমান দৃষ্টান্ত বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের অনেক পর্যটকদের জন্য দর্শনীয় স্থান রয়েছে তাই ডুমুরিয়া থেকে খুলনা যাওয়ার জন্য ব্রিজের উপর দিয়ে যাওয়ার সময় দক্ষীণের বাতাস প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বয়ে চলেছে আমাদের উপর দিয়ে তাই সব মিলিয়ে ছবিটি দৃশ্যমান এবং অসাধারণ নিশ্চয়ই তোমাদের খুবই ভালো লাগবে আর ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করুন
সাতক্ষীরা থেকে প্রায় 25 কিলোমিটার দূরে পাটকেলঘাটা পাটকেলঘাটা থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে মির্জাপুর গ্রাম এই মির্জাপুর গ্রামের দুই সাইডে প্রচুর পরিমাণ কৃষকের ফসলের জমি রয়েছে তাই এই ফসলের জমি এখন বর্তমান সব ঘের মাছের ঘের হয়ে গেছে তাই বন্ধুরা এই মাছের ঘেরে কৃষকেরা মাছ চাষ করে থাকেন তাই দেখতে পাচ্ছেন সারি সারি নৌকাগুলো বাধা আছে এই মির্জাপুর রাস্তার সাইডে এই নৌকাগুলো দেখলেই মনে হয় এটা মনে হয় কোন এক সদরঘাট না একটা নৌকা ঘাট কিন্তু নয় এটা এই এলাকার কৃষকদের একেকজনের একেক টা নৌকা যার হেরে যাওয়ার জন্য সেই নৌকা কিনে রেখেছে খুবই অসাধারণ এই নৌকাগুলো তাই এই মির্জাপুরের প্রাকৃতিক সুন্দর চোখে পড়ার মতো সবুজ শ্যামল বাংলাদেশ সাতক্ষীরা শহর থেকে প্রায় 25 থেকে 28 কিলোমিটার দূরে মির্জাপুর গ্রামের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য চোখে পড়ার মতো তাই নিশ্চয়ই বন্ধুরা এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ভালো লাগবে তোমাদের তাই যদি ভালো লেগে থাকে অবশ্যই তোমরা মির্জাপুরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ঘুরে আসুন ভালো লাগবে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আমার চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করুন
বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী জেলা রাঙ্গামাটি রাঙ্গামাটি পিকনিক স্পট আছে অনেকগুলো দর্শনীয় স্থান আছে যেমন ঝুলন্ত ব্রিজ টিং টিং পার্ক চাকমা রাজার বাড়ি এবং ইত্যাদি ইত্যাদি তাই এই পাহাড় কেটে কৃষকরা যখন জুম চাষ করে থাকেন তখন এটাও একটি দর্শনীয় স্থান হয়ে গেছে কারণ কৃষকেরা এই জুম চাষ করার দৃশ্যটা কতদিন অসাধারণ এই ছবিটা তুলতে গেলে দেখলে মনে হয় প্রিন্টিং রং তুলি দিয়ে আঁকা ভাস্কর্যের ছবি অথবা কোন একটি ছবি তাই এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর জুম চাষ করা কৃষকের ধন্যবাদ জানিয়ে এই ছবিটা অসাধারণ লেগেছে কারণ এই কৃষকের পাহাড়ে জুম চাষ করার দৃশ্য কতইনা দৃশ্যমান এত সুন্দর ঘরের ডিজাইন করে জুম চাষ করেছেন আমাদের কাছে খুবই প্রিয় ভিটামিন জাতীয় খাবার খুবই অসাধারণ সৌন্দর্য নিশ্চয়ই তোমাদের ভাল লাগে তাই ভালো লাগার মতো একটি অসাধারণ দৃশ্য তাই এই সব মিলিয়ে অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য খুবই ভালো লেগেছে কারণ রাঙামাটি শহরের প্রাণকেন্দ্রে কৃষকেরা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে এই ছবিটা আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে নিশ্চয়ই তোমাদের ভালো লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবে
দর্শনার্থীদের জন্য একটি অসাধারণ জায়গা এটা এটা দেখলেই যেন প্রাণটা জুড়িয়ে যায় কারণ দেখতে পাচ্ছেন সাইকেল দিয়ে তৈরি করা একটি স্ক্রীনশটএর মত কতইনা অসাধারণ একটি পানির নৌকা তৈরি করা হয় দেখতে পাচ্ছেন একজন দর্শনার্থী উনিক স্ক্রীনশটএর মত নৌকাটা পায় পাক দিয়ে চালানোর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে খুবই দৃশ্যমান তাই নিশ্চয়ই আপনাদের এই ছবিগুলো ভালো লাগবে এটা বাংলাদেশের দক্ষিণে সাতক্ষীরা
সাতক্ষীরা জেলার মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ির ভিতরে একটি বিশাল বড় দিঘিতে দর্শনার্থীদের জন্য পায়ে পাকানো সাইকেলের মতো স্ক্রিম বোর্ড তৈরি করা হয় তাই সবাই মিলে দর্শনার্থীরা ঘুরতে আসেন কারণ এটা বাংলাদেশের সর্বশেষ দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে বয়ে চলা একটি জেলা এই জেলার মানুষেরা এই মন্টু মিয়ার পিকনিকে ঘুরতে যান পিকনিক স্পটের নাম দেয়া হয়েছে মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ি এটা খুবই অসাধারণ সাতক্ষীরা শহর থেকে মাত্র 5 কিলোমিটার দূরে এই মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ি এর ভিতরে শিশু বাচ্চাদের নিয়ে ঘোরাঘুরি দেখার অনেক কিছু রয়েছে তাই সব মিলিয়ে অসাধারণ এবং বন্ধুরা আপনাদের ভালো লেগে থাকে আপনার আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে নিতে পারেন খুবই অসাধারণ
বান্দরবান পাহাড়ের উপরে পর্যটকদের জন্য অসাধারন একটি রিসোর্ট তৈরি করা হয়েছে এই দৃশ্যটি খুবই দৃশ্যমান এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য কারণ এই রিপোর্টটা বান্দর পাহাড়ের উপরে অপূর্ব মিতালি নামে এই রিসোর্টের নাম করণ করা হয় খুবই অসাধারণ এই অপূর্ব একটি অসাধারণ সবুজ ঘাস এবং বন-বনানীর ভিতর দিয়ে ঘেরা আর লাইটের আলোয় আলোয় সজ্জিত এই অপূর্ব মিতালী দৃশ্যটা অসাধারণ এটা এখান থেকে প্রায় তিন মাস আগে শুভ উদ্বোধন করা হয় তার একটি ছবি আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম এটা বাংলাদেশের উত্তরে বান্দরবান জেলা বান্দরবান জেলার পাহাড়ি এলাকা এই পাহাড়ের উপরে নীলগিরি পাহাড় পাহাড় চিম্বুক পাহাড়ের মত অনেকগুলো বৃহত্তম পাহাড় রয়েছে তাই এই পাহাড়ের ওপরে অপূর্ব মিতালি নামে একটি রিসোর্ট তৈরি করা হয় পর্যটকরা যখন ঘুরতে আসবেন তখনই এখানে থাকার জন্য সুন্দর ব্যবস্থা করা হয়েছে তাই এই তাম্বু দিয়ে ঘেরা একটি সুন্দর বাড়ি এমনভাবে কয়েক শতাব্দী সুন্দরভাবে অপূর্ব মিতালি নামে একটি রিসোর্টের সৌন্দর্য তৈরি করা হয় তাই এটা বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহত্তম একটি পাহাড়ের ওপরে সুন্দর এক অপরূপ দৃশ্য অবশ্যই আপনারা বান্দরবান শহরে ঘুরে আসবেন এবং সোনার অনেক ক িছুই এখানে ঘোরার জন্য খুবই দৃশ্যমান এখানে অসাধারণ শীতের সকালে কুয়াশার চাদরে মোড়ানো সন্ধ্যার পরে হালকা হালকা ঠান্ডা এই অপূর্ব মিতালী থাকবেন খুবই দৃশ্যমান এবং খুবই অসাধারণ নিশ্চয়ই আপনাদের এই ছবিটা খুবই ভালো লাগবে আর ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব
আপনাদের সামনে এবার আমি দুইটা রেলওয়ে স্টেশনের ছবি তুলে ধরব একটা বাংলাদেশের রাজশাহী জেলার রেল স্টেশনের ছবি খুবই অসাধারণ এটা সন্ধ্যার পরে আলোকসজ্জায় সজ্জিত বিভিন্ন কালারের ডিজাইনের আলো দিয়ে ভরে রাখা হয়েছে এই রাজশাহী রেল স্টেশনের খুবই সুন্দর পরে রাজশাহী শহরের এই জায়গাটা যেন সবার কাছে খুব প্রিয় হয়ে ওঠে খুবই অসাধারণ এবং আরেকটা ছবি দেখতে পাচ্ছেন এটা আব্দুল্লাহপুর আব্দুল্লাহপুর রেলস্টেশন একটি বিলের ভিতর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের এই বাংলাদেশ তাই বন্ধুরা আব্দুল্লাহপুর জংশন আমাদের কাছে খুবই প্রিয় আকাশের আকাশের সাথে সকাল বেলা বিকাল বেলা যখন আছে তখন মানুষের মনে কতই না আনন্দ হয়ে থাকে এই সব মিলিয়ে ছবিটি কি অসাধারণ তাই বন্ধুরা রাজশাহী শহরের এই রাজশাহী রেলস্টেশন এবং আব্দুল্লাহ পুর জংশন রেল স্টেশনের দৃশ্য গুলো আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং আকর্ষণীয় সবুজে ঘেরা বাংলাদেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বাংলাদেশ সব মিলিয়ে অসাধারণ বাংলাদেশ তাই এই আব্দুল্লাহপুর জংশন আর রাজশাহী রেলস্টেশন এর ছবি তো আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে তাই বস আপনার যদি ভালো লেগে থাকে আপনি আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে ওয়ালপেপারে সেট  করে নিতে পারেন খুবই অসাধারণ এবং খুবই দৃশ্যমান একটি ছবিটা
যশোর জেলার কলারোয়া উপজেলার সামনে থেকে একটি রাস্তা চলে গেছে না বানানোর দিকে তাই এই রাস্তার কোল ঘেঁষে বয়ে চলা একটি পাঁচিল এবং বিশাল বড় বড় শিশু গাছের ভিতর এই রাস্তাটা খুবই অসাধারণ লাগে কারণঃ এই রাস্তা টা খুবই দৃশ্যমান সকালবেলা ঠান্ডা শীতের সকালে কুয়াশার চাদরে মোড়ানো এই সকাল বেলা যখন রাস্তা দিয়ে হেঁটে আসতে হয় তখন কতই না ভাল লাগে আমাদের কারণ শীতের সকালে হালকা হালকা ঠান্ডা আমাদেরকে খুবই ভালো লেগে থাকে রাস্তায় সোনালী সবুজে ঘেরা শিশু গাছ আর রাস্তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর সকালের ঠান্ডা আবহাওয়া যশোর ঝিকরগাছা এই ছবিটা আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ কলারোয়া উপজেলার এই ঝিকরগাছার মাঝখানে রাস্তা আমার কাছে খুবই প্রিয় তাই নিশ্চয়ই তোমাদের এই ছবিটা ভালো লাগবে ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন এই শীতের সকালের কুয়াশার চাদরে মোড়ানো প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিশ্চয়ই ভালো লাগবে আপনার যদি ছবিটা ভালো লেগে থাকে আপনি আপনার মোবাইলের স্ক্রিনে ওয়ালপেপারে সেট করে নিতে পারেন খুবই অসাধারণ এবং খুবই দৃশ্যমান একটি ছবি
রাজশাহী শহরের রাস্তার উপরে সুন্দর করে ঝাড় বাতি দিয়ে আলোর সজ্জায় সজ্জিত করে রাখা হয়েছে রাজশাহী শহর একটি ডিজিটাল শহরে রূপান্তরিত করা হয়েছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহত্তম শহর রাজশাহী রাজশাহী শহরের রাত্রে ঝাড়বাতির আলোয় আলোকিত হওয়ার দৃশ্য গুলো অসাধারণ তাই বন্ধুরা নিশ্চয়ই আপনাদের এই ঝাড়বাতির আলোয় আলোকিত হওয়ার রাস্তা এবং দুই কালারের রাস্তার আলোর ডিজাইন খুবই অসাধারণ রাস্তায় সন্ধ্যার পরে যানবাহন চলাচল করার দৃশ্য এবং অসাধারণ দৃশ্য ছবি এবং রাতের আধারে হালকা হালকা ঘন কুয়াশার ভিড়ে আলোয় আলোকিত হয়ে যাওয়া রাস্তার দৃশ্য টা কত অসাধারণ তাই বন্ধুরা রাজশাহী শহরের এই রাস্তাটা আমার কাছে খুবই প্রিয় এবং অসাধারণ ভালো লাগে ভালো লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব
যশোর জেলার একটি রোড এই রোডটা কে বলা হয় প্যারিস রোড তাই রাতের বেলা এই প্যারিস রোড এ দৃশ্যটা একটি অসাধারণ দৃশ্যমান ছবি হয়ে ওঠে কারণ প্যারিস রোড এ রাত্রে আলোকসজ্জায় সজ্জিত
বিভিন্ন ডিজাইনের বাতি দিয়ে তৈরি করা আলোগুলো কতইনা অসাধারণ দৃশ্যমান আলোর সজ্জায় সজ্জিত এই প্যারিস রোড একটি অসাধারণ দৃশ্যমান রোড কারণ বাংলাদেশের দক্ষিণে যশোর জেলার মানুষেরা খুবই আনন্দময় মানুষ এখানকার মানুষেরা খুবই অসাধারণ তাই দেখতে পাচ্ছেন সন্ধ্যার পরে অনেক পথ যাত্রীরা রাস্তা দিয়ে হেঁটে চলেছেন তাদের নিজের গন্তব্য টাইপের এই দৃশ্যটা সবার চোখে পড়ার মতো একটি ছবি তাই বন্ধুরা রোডের সাইডে পাঁচিল দিয়ে এবং গাছ-গাছালি দিয়ে ভরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি এই প্যারিস রোড যশোর জেলার বৃহত্তম প্যারিস রোড বাংলাদেশের একটি নান্দনিক রোড যশোর জেলার নান্দনিক এই শহরে একটি অসাধারণ অসাধারণ লেগেছে
অদূর দূরে সাতক্ষীরা বাংলাদেশের দক্ষিণে এই সাতক্ষীরা জেলা তাই এই সাতক্ষীরা জেলার একটি মাত্র পিকনিক স্পট এবং স্থল বন্দর সেটাকে আমরা বলে থাকি সুন্দরবন ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন বাংলাদেশের সাতক্ষীরা জেলা মুন্সিগঞ্জ উপজেলা বঙ্গোপসাগরের সাইট দিয়ে এই ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন একটি দর্শনার্থীদের জন্য অসাধারণ পর্যটক স্থান এখানে প্রতিবছর দর্শনার্থীরা ঘুরতে আসেন তাই কয়েকটা ছবি আপনাদের সামনে তুলে ধরেছি অনেক পর্যটকরা বেড়াতে এসেছেন এই সুন্দরবনের ভেতরে কারণ দেখতে পাচ্ছেন পর্যটকরা বাগানের ভিতর দিয়ে হেঁটে চলেছে সুন্দরবন দেখার জন্য কারণ তারা গাছ আতা গাছ কত রকম গাছ রয়েছে এই সুন্দর বনের ভিতরে তাই দর্শনার্থীরা দাঁড়ানোর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন এই সুন্দরবনের ভিতরে তাই ফরেস্ট অফিসার রা নেতৃত্বে এই সুন্দরবনের পর্যটকরা বেড়াতে যান কারণ সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগারের রয়েছে তাই এই ফরেস্ট অফিসার পর্যটকদের বেড়াতে নিয়ে যান সুন্দরবনের ভিতরে এবং সুন্দর মনের ভিতর ছোট্ট একটি খাল দেখতে পাচ্ছেন সূর্যের আলোয় হালকা হালকা চিকচিক করছে এই খালের পানি গুলো কতইনা অসাধারণ এবং দৃশ্যমান তাই বন্ধুরা নিশ্চয়ই তোমাদের এই প্রাকৃতিক সৌন্দ র্য একটি দৃশ্যমান আকাশের আকাশের ভিড়ে এই ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন আমাদের কাছে খুবই প্রিয় এবং খুবই অসাধারণ একটি সুন্দরবন তাই নিশ্চয়ই তোমরা বেড়াতে আসবা বাংলাদেশের দক্ষিণে সাতক্ষীরা জেলার এই সুন্দরবন সুন্দরবন বাংলাদেশের বৃহত্তম পৃথিবীর পৃথিবীর দ্বিতীয় তম বলা হয় এই সুন্দরবনকে তাই ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন আর বঙ্গবসাগর একটি দর্শনীয় স্থান একটি দৃশ্যমান পর্যটকদের ভিড়ে সুন্দরবন টা হয়ে উঠেছে একটি পিকনিক স্পট তাই সব মিলিয়ে ছবিটা অসাধারণ ভালো লাগলে অবশ্যই লাইক বা কমেন্ট করবেন আর আমার এই চ্যানেলটা সাবস্ক্রাইব করবেন