写真

শুভ সন্ধ্যা বন্ধুরা , এই  মাঠটি আপনারা দেখতে  পারছেন । এই  সবার  কাছে  অনেক  জনপ্রিয়  । এই  স্থানটি হলো   জাহানাবাজ গ্রাম।   এই  মাঠটি সবার  কাছে  অনেক  জনপ্রিয়  হওয়ার কারন হলো  এখানে  ছোট  বড় ছেলে  মেয়েরা  খেলা ধুলা  করে ।  তারপর  এখানে  বিভিন্ন  অনুষ্ঠান হয় এই  মাঠে ।  এই মাঠটি দেখা  যাচ্ছে  বালি দিয়ে  ভরা ।  মাঠের  ডান পাশে  একটি  ছোট  পাচিল দেখা  যাচ্ছে ।   পাচিলের ডান পাশে  দুই তালা বাড়ি  দেখা  যাচ্ছে ।  নিচের  তালাটি  হলুদ  রং করা  । উপরের  তালাটি  ইটের  তৈরি । দুই তালা ঘরের  নিচের  তালার ভেতরে  একটি  টিনের  জানালা আছে । দুই তালা ঘরের  সামনে কয়েকটি  আম গাছ দেখা  যাচ্ছে ।  মাঠের  বাম পাশে  সামনে  একটি  ধানের  খেত দেখা  যাচ্ছে  ।  ধানের  খেতের সামনে  একটি  ইটের  বাড়ি  দেখা  যাচ্ছে । মাঠের ডান পাশে  আম গাছের  সামনে  একটি  কারেন্টের  খুটি  আছে । তার  পাশে  একটি  বট গাছ  দেখা  যাচ্ছে । কারেন্টের  খুটির সামনে  একটি  মসজিদ  দেখা  যাচ্ছে ।
আশা  করি বন্ধুরা  ভালো  আছেন । আমি  একটি  সুন্দর  ধানের  খেতের পিকচার   পোস্ট  করলাম । স্থান    থান্ডার পাড়া  গ্রাম।  সবুজ  ধানের  খেত  ভরা।ধানের খেতের   ডান পাশে  সামনে  অনেক  গুলো  গাছ দেখা  যাচ্ছে । গাছ গুলো  হলো  নারকেল  গাছ ও খেজুর  গাছ ইত্যাদি ।  গাছের  নিচে  অনেক  গুলো  গোবর  নুড়ি  দেখা  যাচ্ছে ।  ধানের  খেতের ডান পাশে গাছের  সামনে  একটি  টালি দেওয়া ঘর আছে ।   তার  পাশে  একটি  ইটের  একটি  দালান  দেখা  যাচ্ছে ।  তার  সামনে  একটি টালি দেওয়া  ঘর আছে । ঘরের  সামনে   টিন ও বস্তা  দিয়ে  ঘেরা ।  তার  পাশে  অনেক  গুলো  কাঠ রাখা  আছে । ধানের  খেতের বাম পাশে  একটি  রাস্তার   দেখা  যাচ্ছে । রাস্তার  পাশ দিয়ে   অনেক  গুলো   তাল গাছ  আছে ।  তাল গাছের  সামনে  দুটি  টিনের  ঘর আছে । একটা  হলো  ইটের  ও অন্যটি  মাটির  ঘর। মাটির  ঘরের  সামনে   অনেক  গুলো  কাপড়  নেড়ে  দেওয়া  আছে । ঘরের  পেছনে  অনেক গুলো  তাল গাছ শিশু  গাছ আছে ।
সুভ সকাল  বন্ধুরা , এই  স্থানটি আপনারা দেখতে  রোদের  উজ্জ্বলতা  বাড়ির   উঠানে পড়েছে । স্থান  হলো   মুনজিত পুর  গ্রাম। প্রথমে বাড়ির  সামনে  একটি  নারকেল  গাছের  গোড়া   দেখা  যাচ্ছে ।  বাড়িটি সুন্দর  ইটের  তৈরি ।  জানালা  ও দরোজা লাল রংয়ের দেওয়া  আছে । ঘরের  উপরে টিন দিয়ে  সাওয়া । বাড়ির  সামনে  একটি  সুন্দর  লাল ফুল   গাছের  আছে ।  উঠানের বাম পাশে   একটি  ঘর দেখা  যাচ্ছে । তার  পাশে   দুটো  আম গাছ আছে ।আম গাছে  অনেক  বুল ধরেছে। উঠানে অনেক  ঘাস হয়েছে ।উঠানে ঘাসের  পাশে  একটি  ছোট  রাস্তা দেখা  যাচ্ছে । উঠানের সামনে  লাল ফুল  গাছের  সামনে  একটি  সাদা  রং করা  একটি  দালান  আছে । দালানের উপর  একটি  পানির  পাম্প দেখা  যাচ্ছে । দালানের পেছনে  অনেক  গুলো  গাছ  আছে ।গাছ গুলো  নারকেল  গাছ, মেহগুনী গাছ, শাড়া গাছ ইত্যাদি ।
হ্যালো  বন্ধুরা, আপনারা  দেখতে পারছেন   সুন্দর একটি  রাস্তার  পিকচার  । এই  রাস্তার  পিকচারটি আমি  পোস্ট  করলাম   আপনাদের  মাঝে । স্থান  ধুলিহর বাজার  খোলা  গ্রাম । রাস্তার  ডান পাশে   অনেক  গুলো  কচু গাছ দেখা  যাচ্ছে । তার  পাশে  একটি  টিনের  দোকান  আছে   দোকানের  গায়ে  একটি   বাশের বেড়া দেখা  যাচ্ছে । রাস্তার  ডান পাশে  মাঝখানে  তিনজন লোক  সাইকেল  চালিয়ে  যাচ্ছেন । তাদের   মধ্যে একজনের  পাঞ্চাবী ও টুপি  পড়া ।আর দুই  জনের    লুঙ্গি  ও জামা পড়া। রাস্তার  বাম পাশে   অনেক  গুলো  পাতা  গাছ দেখা  যাচ্ছে । তার  সামনে  একটি  গাছের  পাশে   অনেক  গুলো  ইট রাখা  আছে । রাস্তার  ডান পাশে  টিনের  ঘরের  সামনে  অনেক  গাছ আছে ।গাছ গুলো  হলো   আম গাছ, মেহগুনী গাছ, কলা গাছ , নারকেল  গাছ ইত্যাদি । গাছের  নিচে  অনেক  গুলো সাদা  বস্তা বস্তা দেখা  যাচ্ছে । বস্তার সামনে  একটি  দোকান  আছে। দোকানের  ভেতরে  অনেক  গুলো  মটরসাইকেল  সাইকেল  রাখা  আছে ।  রাস্তার  বাম পাশে  ইটের  সামনে  একটি  দোকান  দেখা  যাচ্ছে । দোকানের  পাশে  একটি   লোক  মটরসাইকেল  নিয়ে  দাড়িয়ে  আছে।
আশা  করি বন্ধুরা  ভালো  আছেন । আমি  আপনাদের  মাঝে  একটি  সুন্দর  রাস্তার  পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান   ধুলিহর কাছারি  পাড়া । রাস্তার  ডান পাশে  একটি   বাশের বেড়া  দেখা  যাচ্ছে ।  বেড়ার  পাশে  তিনটি  গাছ দেখা  যাচ্ছে । গাছ গুলো  হলো  আম গাছ, আমড়া গাছ,  কাটা  গাছ। বেড়ার পাশে  একটি  বিল্ডিং  দেখা  যাচ্ছে ।  বিল্ডিংয়ের রংটা  আকাশী ও গাড় লাল রংয়ের। রাস্তার   ডান পাশে মাঝখানে  একজন ভ্যান ওয়ালা  ভ্যান চালিয়ে  যাচ্ছেন । রাস্তার  বাম সাইডে একটি  টিনের  দোকান  দেখা যাচ্ছে । তার  পাশে  লম্বা  বাশের বেড়া  সোজা  রাস্তার  বাড় দিয়ে  বাধা । রাস্তার  ডান পাশে  ভ্যানের সামনে  আরেকটি  ভ্যান ওয়ালা  গাড়িতে  একজন  পেছেঞ্জার নিয়ে   চালিয়ে  যাচ্ছেন । তার  বাম সাইডে একটি  কারেন্টের  খুটি  দেখা  যাচ্ছে । রাস্তার  ডান পাশে  বিল্ডিংয়ের  ধারে অনেক  গাছ আছে ।গাছ গুলো  হলো  খেজুর  গাছ,  নারকেল  গাছ, সুপারি গাছ,  লাল ফুল গাছ ইত্যাদি । খেজুর  গাছের পাশ দিয়ে  একটি  বড়  পাচিল সোজা  রাস্তার  পাশ দিয়ে  চলে  গেছে ।
বন্ধুরা  আপনারা  দেখতে  পারছেন এই  রাস্তাটি সোজা  বাড়ির  ভেতরে  চলে  গেছে। আমি  এই  রাস্তার  পিকচারটি  পোস্ট  করলাম। স্থান  লবন গোলা গ্রাম। রাস্তার  ডান পাশে  একটি  বালতি দেখা  যাচ্ছে ।  বালতির সামনে  একটি ছোট  গর্ত আছে । গর্তের পাশে  একটি  বিচুলী গাদা  রয়েছে । বিচুলী গাদার  পাশে  একটি  আম গাছ দেখা  যাচ্ছে ।  রাস্তার  বাম পাশে  একটি ইটের  পাচিল আছে ।তার সামনে  দুটি  গাছের  বাড়ে অনেক  গুলো  গোবর  নুড়ি নেড়ে  দেওয়া  আছে । গোবর  নুড়ির পাশে  একটি  ছোট  ছেলে  ও মেয়ে দাড়িয়ে  আছে । রাস্তার  ডান পাশে  সামনে   অনেক  গুলো  এক তালা  বাড়ি  আছে । বাড়ির  রং গুলো  সবুজ  ও নীল রং করা । বাড়ির  নিচে  একটি  সাইকেল   আছে ।  সাইকেলের পাশে  একটি   টিনের  দরজা  আছে ।
বন্ধুরা , আমি  আপনাদের  মাঝখানে  একটি  ছোট  রাস্তার  পিকচার  পোস্ট  করলাম। স্থান  জাহানাবাজ গ্রাম।   রাস্তার  ডান পাশে   একটি  সবজির বাগান আছে।তার চারি পাশে একটি  বড় নীল  নেট দিয়ে  ঘেরা আছে । সবজির বাগানের  ভেতরে  অনেক  গুলো  গাছ রয়েছে ।গাছ গুলো  হলো   আম গাছ, কলা গাছ, সুপারি গাছ , টমেটো  গাছ, বেগুন  গাছ,  পিয়াজ গাছ। রাস্তার  বাম পাশে  কয়েকটি  বড় বড় সুপারি গাছ আছে । একটি  সুপারি গাছের  গায়ে   অনেক  গুলো  গোবর নুড়ি  নেড়ে  দেওয়া  আছে । তার  পাশে  অনেক  গুলো  শুকনো ডাল পালা আছে ।সুপারি  গাছের পেছনে  একটি  বেড়া দেওয়া  ঘর আছে । ঘরের  উপরে  তাল পাতার  ছাউনি ।ঘরের গায়ে   কয়েকটি  মিঠাকুমরার গাছ সোজা  ঘরের  সাউনির উপর  উঠে  গেছে । রাস্তার  ঘরের  সামনে  একটি  নালার গর্থ আছে । রাস্তার  নালার সামনে  একটি   মাটির  ঘর আছে ।ঘরের নিচে   দুটো  কলা গাছ আছে । গাছের  নিচে  একটি  ঝুড়ি  ও টিন রয়েছে ।
বন্ধুরা আপনারা কখনো কি দেখেছেন বাড়ির ভেতরের রাস্তা। আমি  একটি  বাড়ির  রাস্তার  পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান  চাঁদ পুর।  বাড়ির  রাস্তার  ডান পাশে   তিনটি  মেহগুনী গাছ আছে ।গাছে একটি  দড়িতে  কাপড়  চোপড়  শুকানোর জন্য  নেড়ে  দেওয়া  আছে।  রাস্তার  বাম পাশে  একটি  ইটের  ঘর আছে । ঘরের  জানালা  গুলো   সবুজ  রং করা । ঘরের  নিচে  কয়েকটি  পাথরের  উপর  বস্তা ভরা মাটি আছে । ঘরের  সাথেও একটি  দড়িতে  কয়েকটি  কাপড়  নেড়ে  দেওয়া  আছে । বাড়ির  রাস্তার  ডান  সাইডে গাছের  পাশে  একটি  নীল নেট দিয়ে  ঘেরা  আছে ।  নেটের বাম পাশে  একটি  পেয়ারা গাছ রয়েছে । পেয়ারা গাছের  সামনে  একটি  টিউবয়েল  আছে । এই  টিউবয়েল নিচে  একটি  বডনা ও একটি  ছাল দেখা  যাচ্ছে ।  টিউবয়েলের পাশে  একটি  পানির  গর্থ আছে । টিউবয়েলের বাম পাশে  জমিতে  অনেক  গুলো  মাটি  আছে । তার  পাশে  কয়েকটি  আম,খেজুর, কলা গাছ আছে ।
শুভ বিকাল  বন্ধুরা , এই রাস্তাটি আপনারা দেখতে পারছেন।স্থান  কোমর পুর। আমি  এই  পিকচারটি  পোস্ট  করলাম  আপনাদের  মাঝে । রাস্তায়  প্রথমে দেখা  যাচ্ছে   একটি  সাইকেলের  হ্যান্ডেল।   সাইকেলের নিচে  রাস্তায়  অনেক  গুলো  ছেড়া  জামা কাপড়  ফেলানো আছে। রাস্তার  বাম সাইডে একটি  বড়  খেলার  মাঠ আছে । খেলার  মাঠে  খানেক  গুলো  পাতা  নেড়ে দেওয়া  আছে । রাস্তার  ডান সাইডে একটি  বাঁশের বেড়া  রয়েছে । তার  ভেতরে  একটি  বাঁশের  ঝাড় আছে । রাস্তার  সাইডে  বড় মাঠের  বাম পাশে   অনেক  ছোট   বড় গাছ দেখা  যাচ্ছে ।  সে গাছ গুলো  হলো  তাল গাছ, আমড়া গাছ, মেহগুনী গাছ, তার  পেছনে  বাঁশ গাছ। রাস্তার  বাম সাইডে মাঠের  সামনে  একটি   টিনের  ঘর দেখা  যাচ্ছে । টিনের  ঘরের  পাশ দিয়ে  একটি   লম্বা নীল  বাঁধা আছে । ঘরের  সামনে  তিনটি  সাদা  রং করা  বাঁশ দেখা যাচ্ছে । ঘরের  পেছনে  আম আছে ।
সুভ সকাল  বন্ধুরা , আমি  আপনাদের  মাঝখানে  একটি ঘরের পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান  সাতক্ষীরা ।  ঘরের  সামনে  তিনটি জানালা  আছে । ঘরের  জড়োজার মুখ টা লাল রং করা। তার  পাশের চারী সাইট  সাদা  রং করা । ঘরের  ডানপাশে মধ্যে খানের  রং লাল এবং  তার  চারি পাশের  রং গুলো  সাদা । ঘরের ডান পাশের  নিচে ছোট ফুলের  অনেক  গাছ আছে ।  ঘরের  বাম পাশে  একটি  বড় তাল গাছ রয়েছে । তাল গাছে  অনেকগুলো  বাবুই পাখির  বাসা  ঝুলছে । ঘরের  নিচে  সবুজ  ঘাসে ভরা।  ঘরের  ডান পাশে  একটি বড় কিছু  দেখা  যাচ্ছে । ঘরের  এই  চারিপাশের দৃশ্য  গুলো  খুবই  মনো মুগ্ধকর। ঘরের  রং গুলো  দেখতে  খুব  সুন্দর  লাগছে ।  ঘরের  এই  রং করা  নেরো লাক্স দিয়ে  প্রিন্ট করা ।
হ্যালো  বন্ধুরা , নিশ্চয়ই  আপনারা  ভালো  আছেন । আমি আপনাদের  মাঝে  একটি  সুন্দর  রাস্তার  পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান  বালুই গাছা। রাস্তার   ডান পাশে  একটি  নেট দিয়ে  ঘেরা । নেটের   পাশে  একটি  ধানের  খেত আছে ।নেটের বাড়ে এক সাড়িতে অনেক  গুলো  কলা গাছ আছে । রাস্তার  বাম পাশে  একটি   ইটের পাচিল আছে ।তার পাশে  একটি  বড় খেজুর  গাছ আছে । খেজুর  গাছের  বাড়ে একটি  মেহগুনী গাছ দেখা  যাচ্ছে । রাস্তার  বাম পাশে  পাচিলের সামনে  আরেকটি   রং করা বাড়ির  পাচিল আছে । পাচিলের ভেতরে  একটি  ছাদের  ঘর আছে । ছাদের  উপর  একটি  নীল নেট দেখা  যাচ্ছে । রাস্তায়  দুইজন  লোক দেখা  যাচ্ছে । একজন  মহিলা  ও অন্যজন পুরুষ । তাদের  পাশ দিয়ে  একটি  ভ্যান যাচ্ছে ।  রাস্তার ডানপাশে ধানের  খেতের সামনে  অনেক  গুলো  ঘর দেখা  যাচ্ছে ।
এই  পুদিনা  লবঙ্গ  টুথপেস্ট   আমাদের  সবারি প্রয়োজন  কারণ  এটি দাতের সকল রোগ থেকে  মুক্তি  দেয়। আমি  এই  পুদিনা  লবঙ্গ    টুথপেস্টের  পিকচার  আপনাদের  মাঝে  পোস্ট  করলাম । স্থান হলো খড়ি বিল গ্রাম।   এই  পুদিনা  লবঙ্গ  টুথপেস্ট  দাঁতের  জন্য  খুবই  উপকারী।  এর উপকারগুলো হলো  এটি  দাঁতের মাড়ির  ব্যাথা   ও দাতের  ক্ষয়  রোধ করে  এবং  দাঁত সাদা  ও উজ্জ্বল   করে ।  এই  পুদিনা  লবঙ্গ   টুথপেস্টের  তৈরী  উপাদান  গুলো  হলো  ক্যালসিয়াম  কার্বোনেট, সরবিটল, সিলিকন ডাই অক্সাইড, সোডিয়াম  লরেইল সালফেট  ডোডিসাইল বেনজিন সালফোনেট, সেলুলুজ,  মিণ্ট এক্সট্র‍্যাক।  এর খুচরা  মূল্য  35 টাকা ।  এর ওজন  100 গ্রাম।  আমাদের  প্রতিদিন  সকালে  ও বিশেষ  করে  রাতে খাবারের  পর  পুদিনা  লবঙ্গ  টুথপেস্ট  দিয়ে  দাঁত পরিষ্কার  করতে  হবে ।তাহলে আমাদের  দাঁত মজবুদ ও সাদা হবে । দাঁতের  সঠিক  পরিচর্যা নিশ্চিত  করতে ডেণ্টাল ফ্লস দিয়ে  দাতের  আটকে  থাকা  খাদ্য  কণা নিয়মিত  পরিষ্কার  করতে  হবে ।তাহলে দাঁত ভালো  থাকবে ।
বন্ধুরা , আমি  আপনাদের  মাঝে  একটি  ধানের  খেতের পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান  বড় খামার  গ্রাম। সবুজ  ধানের  খেত। ধান খেতের মাঝ দিয়ে  একটি  আল আছে । সবুজ  ধান খেতের ধানের   পাতা ভরে  গেছে । ধান খেতের ডান পাশে  সামনে  একটি  কালো  ইটের  ঘর দেখা  যাচ্ছে। তার  উপরে টালি দিয়ে  সাওয়া আছে। ঘরের  বাম পাশে  একটি  নারকেল  গাছ রয়েছে । ঘরের  পেছনে  অনেক  গুলো  গাছ দেখা  যাচ্ছে । গাছ গুলো  হলো  শিশু  গাছ, নারকেল  গাছ, মেহগুনী গাছ, বেল গাছ আছে । ধানের  খেতের  মাঝখান বরাবর  সামনে   বাম পাশে  একটি  ইটের  ঘর রয়েছে । ঘরের  সাথে টালি দেওয়া  একটি  ফাকা  বাঁশের ঘর আছে । তার  পেছনে  আর ও  অনেক  ঘর আছে। তার  পেছনে  অনেক  গাছ আছে । ঘরের  সামনে  একটি  ছোট  একটি তাল গাছ দেখা  যাচ্ছে । ধানের  খেতের ডান পাশে  সামনে  রাস্তার  বাড়ে একটি  নীল  নেট দিয়ে  ঘেরা ।
এই  কাগজের  তৈরি  ফুল  ও প্রজাপতি   আপনারা  দেখতে  পারছেন  বন্ধুরা , আমি  আপনাদের  মাঝে   এই  সুন্দর  কাগজের  ফুল  ও প্রজাপতির  পারে পিকচার  পোস্ট  করলাম ।  কাগজের  লাঠির  মাঝখানে স্থান  বালুই গাছা থেকে  এই  পিকচারটি তোলা হয়েছে ।একটি  লাল ফুল  দেখা  যাচ্ছে ।তার ভিতরে  সবুজ  রংয়ের পাপড়ি  আছে । লাল ফুলের  উপরে  ও নিচে   আকাশী  রংয়ের প্রজাপতি  বাধা  আছে । লাল ফুলের  ডান ও বামে   সবুজ  রংয়ের প্রজাপতি  রয়েছে । এই  লাল ফুল  বানাতে  হলে  প্রথমে   10 টি লাল  আটপেপার  লাগবে । তার  পর কাচি, দড়ি ,আঠা,লাগবে। প্রজাপতি  বানাতে  সবুজ  আটপেপার, কাচি, দড়ি ,আঠা লাগবে । ফুল  তৈরি  হলো  প্রথম  একটি  করে  কাগজ  চার ভাজ করতে  হবে ।এর পর কাচি দিয়ে  গোল করে  কাটতে হবে ।কাটার পরে  গোল ফুলের  মতো  হবে । এভাবে সব কয়টি  কেটে  বানাতে   হবে । তার  পর আঠা  দিয়ে  লাগাতে  হবে । প্রজাপতি  বানাতে  প্রথম  একটি  কাগজ  দুই  ভাগ করতে  হবে। একটি  ভাগ গোল  করে  কাটতে হবে । অন্য ভাগটা  চার কোনা কাটতে হবে । এরপর  গোল  কাগজের  উপর  আঠা  দিয়ে  চার কোনা কাগজের আগা বসিয়ে  দিতে  হবে । এরপর  ছোট  ছোট  করে  ভাজ করতে  হবে  ।ভাজ করার পর দড়ি  দিয়ে  বাধতে হবে ।
সুভ সকাল  বন্ধুরা , আমি  আপনাদের  মাঝে  দুটি  পিরিচে   আনহেলদি ও হেলদি খাবারের  পিকচার  পোস্ট  করলাম । স্থান  পাল পাড়া বাসা বাড়ি । প্রথম  পিরিচে আছে  হেলদি খাবার । পিরিচে রাখা  আছে  টমেটো , ঝাল, পিয়াজ , শুকনো  রুটি । এই  খাবার  আমাদের  শরীরের  জন্য ভালো । এগুলো  কারণ  হলো  টমেটো  আমাদের  শরীরে খাবার  হজম করতে সাহায্য  করে । ঝাল ও পিয়াজ বাটা  টমেটোর   সালাত বানাতে  সাহায্য  করে । দ্বিতীয়  পিরিচে  আন হেলদি  খাবার  হলো   মুংলার পরোটা ও লুচি  ভাজা । এই খাবার  গুলো  খেলে শরীর  খারাপ  করে । প্রথম  পিরিচের খাবার  গুলো  আমাদের  খাবার  জন্য  একদম সেভ। দ্বিতীয়  পিরিচের খাবার গুলো  আমাদের  জন্য  সেভ না ।তাই আমাদের  খাবার  খাওয়ার সময়  কোন খাবারটা খাওয়া  উচিত   সেটা   আমাদের   সচেতন  ভাবে  খেতে  হবে ।
হায় বন্ধুরা ,কেমন আছেন ? আমি  আপনার  মাঝখানে  একটি  সুন্দর  ছালার পিকচার  পোস্ট  করলাম ।স্থান বালুই গাছা গ্রামে আমার  বাড়ি  থেকে  এই  পিকচারটি তোলা  হয়েছে । থালায়   পুদিনা  লবঙ্গ  টুথপেস্ট  দেখা  যাচ্ছে । তার  পাশে  ফেয়ার  লাভলি এর ক্রিম আছে ।  পুদিনা  লবঙ্গ  টুথপেস্টের  পাশে  অনেক  গুলো  মেলামার প্রিচ আছে । তার  উপরে  একটি  তেলের  বোতল  আছে। তার  পাশে  একটি  কাচের  গিলাছে অনেক  গুলো  মেলামার চামচ রাখা  আছে । তার  পাশে  একটি  বড় লাল মগ আছে ।লাল মগের চারিপাশে  6 টি গিলাছ আছে । 6 টি গিলাসের ভেতরে  একটি  কাচের  গিলাছে একটি  কলম দেখা  যাচ্ছে । ফেয়ার  লাভলির পাশে  অনেক  গুলো  সুন্দর  চুরি  আছে ।তার সামনে  একটি   লাল স্পিরিং গাড়ি  দেখা  যাচ্ছে । থালায়  মোট  আট রকমের  জিনিস  পাত্র আছে । এগুলো  আমরা  অনেক  কাজে  ব্যবহার করে থাকি।যেমন খাবার  পরিবেশন কাজে  ছালা ও গিলাছ  ব্যবহার  করি। টুথপেস্ট  দাঁত মাজার  কাজে  ব্যবহার  করি। ফেয়ার  লাভলি মুখে  ব্যবহার করি।
আপনারা  দেখতে  পারছেন সুন্দর  একটি  ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়া মসজিদ । স্থান    রংপুর । এই  মসজিদটি সবার কাছে  অনেক  জনপ্রিয় । মসজিদটির তিনটি  গম্বুজ  আছে। মসজিদটির গম্বুজ  গুলো  লোহার  তৈরী । মসজিদের  ভেতরে  অনেক  গুলো  ছোট  ছোট  জানালা  আছে । মসজিদের নিচে  একটি  লাল সুন্দর  ফুল  গাছ দেখা  যাচ্ছে । তার  পাশে অনেক  গুলো  সবুজ রংয়ের ফুল  গাছ দেখা যাচ্ছে । মসজিদের  দুই  পাশে  চারটি  লম্বা  গম্বুজ  দেখা  যাচ্ছে । মসজিদের   নিচে  একটি  পুকুর  আছে ।তার চারিপাশে লোহার  রড দিয়ে  ঘেরা । মসজিদের  ভেতরে  মোট 30 টি ঘর  আছে । তার  ভেতরে  সুন্দর  ভাবে  গোছানো। মসজিদের  প্রতিদিন  প্রায়  200 জনের  মতো  লোক  নামাজ  পড়তে  আছে । মসজিদের  চারিপাশ এর সৌন্দর্য  বৃদ্ধি  করে । মসজিদটি সবার কাছে  জনপ্রিয় ।
হ্যালো  বন্ধুরা, কেমন আছেন? আমি  আপনাদের  মাঝে  একটি  সুন্দর  রাস্তায়  পিকচার  পোস্ট করলাম । স্থান   হলো  পাল পাড়া গ্রাম। রাস্তার  ডান পাশে  দুইটা  পুকুর  আছে ।   এই  পুকুরে অনেক  লোক  গোসল  করে । পুকুরে  অনেক  গুলো  কুঞ্চি ফেলানো আছে । পুকুরের  সামনে  অনেক  গুলো  খেজুর  গাছ দেখা  যাচ্ছে । তার  পাশে  একটি  ইটের  ঘর রয়েছে । রাস্তার  বাম পাশে  একটি বাশের বেড়ার ঘর আছে । ঘরের  উপরে   টিন দিয়ে  সাওয়া। ঘরের সামনে  একটি  আম গাছ আছে । তার  পাশে  একটি  লম্বা নীল   নেট  বাধা  আছে ।  রাস্তার  পাশে  ঘরের  অনেক  সামনে  একটি কারেন্টের  খুটি  রয়েছে । তার  পাশে  অনেক  নুরি  নেড়ে  দেওয়া  আছে । তার পাশে  আর ও ঘর আছে । কারেন্টের  খুটির সামনে   একটি  ঘরের  পাশে  নেট দিয়ে  ঘেরা।নেটের ভিতরে  একটি  নারকেল  গাছ আছে । তার  কিছু  দূর  সামনে  একটি  কলের  লাঙল  রাখা  আছে ।
কী ভাবছেন  বন্ধুরা , আমি একটি সবুজ  ধানের  খেতের পিকচার  পোস্ট  করলাম । গোবিন্দ পুর গ্রাম হলো  স্থান ।  সবুজে ভরা ধানের  খেত। ধানের  খেতের মাঝখানে  একটি  বড়  গর্ত আছে । গর্তের পাশে  একটি  বড় য়াল আছে ।  ধানের  খেতের চারিপাশে নীল  নেট দিয়ে  ঘেরা । ধানের  খেতের ডান পাশে  সামনে  একটি  ইটের  ঘর আছে ।তার পাশে  অনেক  গুলো  খেজুর  গাছ দেখা  যাচ্ছে । ধানের  খেতের বাম পাশে  নেটের বাড়ে অনেক  ইট  সাজানো  দেখা  যাচ্ছে ।  তার  পাশে  কয়েকটি  কলা গাছ দেখা  যাচ্ছে । ধানের  খেতের বাম পাশে ইটের  সামনে  একটি  টালি দেওয়া  ঘর রয়েছে । ঘরের  পেছনে  একটি  মরা বড় শিশু  গাছ দেখা যাচ্ছে । তার  পাশে  তাল গাছ, খেজুর  গাছ , বাশ গাছ  আছে ।  এসব  গাছের  পেছনে  একটি  বড় ঘর দেখা  যাচ্ছে ।  ধানের  খেতের সামনে  ইটের  পেছনে  একটি  টিন লাগানো ঘর দেখা  যাচ্ছে  ।সেই ঘরের  জানালাই দুটি  বড় কাপড়  বাধা  আছে ।