写真

হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আমি আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল অনিক খান আশা করি এই ছবিটির গল্প এবং কথা শুনে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাবে আল্লাহর ঘর মসজিদ ঘর এবং এই মসজিদটি অবস্থিত এবং এর কাজ এখনো চলছে এই মসজিদের কাজ করতে অনেক ব্যয়বহুল খরচ করতে হয়েছে এবং এটি খুবই সুন্দর ভাবে তারা ডিজাইন করে তা অবস্থান করছে যাতে আল্লাহর ঘরের এত সুন্দর এত সুন্দর আল্লাহর যাতে দেশের মানুষের মুগ্ধ হয়ে যায় এবং সেখানে বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জে অবস্থিত হয়েছে এবং খুবই ব্যয়বহুল টাকা খরচ করে শুধুমাত্র তারা আল্লাহর ঘরে নামাজ পড়ার জন্য তো এত ব্যয়বহুল খরচ করছে এবং সেখানে আরও দুইটি মিনার হচ্ছে তার কাজ এখনো চলছে এখনো শেষ হয় নাই এইজন্য মুসলিমদের জন্য এই ঘরে এখনো দেইনাই এবং বেশ কিছুদিনের মধ্যেই হবে এবং তারা এখানে এসে নামাজ আদায় করবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি পার্কের ভিতর অনেক সুন্দরভাবে সাজিয়ে রেখেছে এই পাবনা জেলার কর্মকর্তারা এই অবস্থিত পাবনা জেলা শহরের একটু সাইডে এবং এই প্রার্থনা করি সেখানে তারা নৌকা নদীতে ঘুরতে পারে এবং সেইজন্য এখানে অল্প মাত্রায় করে রেখেছে এবং এখানে পানির রং গুলো দেখতে অনেক সুন্দর এবং এখানে অনেক সুন্দর পরিবেশ এত সুন্দর পরিবেশের পরিবেশের মন জুড়িয়ে যায় এবং সেই পার্কের ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে এবং একটি অবস্থিত পাবনা জেলা শহরের একটি অন্যতম এবং এখানে ঘুরতে আসে এবং সেখানে প্রেমিক-প্রেমিকা ঘুরতে ঘুরতে আসে এবং তারা খুবই আনন্দিত এবং এখানে অনেক রকমের খেলনা রান্না করতে পারে এবং সেখানে খুব ভালো মানের এবং বাচ্চারা খেলা করতে পারে এবং খুবই আনন্দ ভোগ করতে পারে এই জন্য এখানে উন্নত মানের এবং খুবই ভালো পার্ক এতটাই সুন্দর এই পার্কটি যেখানে মানুষ প্রতিদিন এখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ ঘুরতে আসে এবং তারা খুবই মজা করে এখানে এবং এখানে ঢুকতে গেলে খুবই নিম্ন মানের একটি টাকা তাদের দিতে হয় টিকিট প্রতি 20 টাকা এবং জনপ্রতি 20 টাকা করে টিকিট কাটতে হয় এবং সে 20 টাকায় সে সারাদিন ওইখানে কাটাতে পারে এবং এখানে যাদের নৌকা ভ্রমন করতে হয় তাদেরকেও আলাদাভাবে টিকেট কাটতে হয় এবং সেখানে ঘুরতে এসে খুবই মজা পায় এবং তারা ঘুরে খুবই মজা কর এবং পারিবারিকভাবেও ঘুরতে আসে অনেক প্রেমিক-প্রেমিকা ভর্তি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশা করি ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে অনেক উঁচু একটি পাহাড় এবং সেই পাহাড়ে ওঠার জন্য সুন্দর করে রাস্তা করা আছে এবং এই পাহাড়ে উঠতে গেলে অনেক দূর থেকে ঘুরে ঘুরে আসতে হয় যেহেতু পাহাড়টি অনেক উচ্চতা এবং রাস্তাটিও এই ভাবে ঘুরে ঘুরে এই রাস্তাটি করা হয় এবং এখানে অনেক জায়গা থেকে পর্যটকরা সেখানে ঘুরতে গেলে খুবই আনন্দ লাগে কেননা পাহাড়ের সবুজ গাছগাছালি এবং সুন্দর রাস্তা এবং এখানে ওঠার জন্য মানুষ পায়ে হেঁটে উঠতে গেলে অনেক কষ্ট হয় এই জন্য মানুষ এখানে গাড়িতে করে ওঠে এবং মাঝপথে ওঠার পর এখানে গাড়ি রাখার জায়গা আছে এবং সেখানে গাড়ি রেখে তারা প্রকৃত সুন্দর দৃশ্য উপভোগ করে এবং সেই পাহাড়ের একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে
স্ক্রিনের উপরে যে ছবিটি দেখতে পাচ্ছেন ছবিটি দেখতে খুবই সুন্দর এবং খুবই চমৎকার কোন ছবিতে দেখা যাচ্ছে তিনটে বাচ্চা মেয়েদের আমার একটি ছবি তুলে ধরা হয়েছে আশা করি ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে তিনটে বাচ্চা নিলে একটি ঘুড়ি উড়াচ্ছে এবং খুবই আনন্দের সাথে যারা আছে এবং এখন ফাঁকা মাঠ মানুষের ধান কাটা শেষ হয়ে গেছে এখন ফাল্গুনে হাওয়া এত পরিমান যাতে গোরা উপন্যাস সুযোগ এবং তারা এখন ঘুড়ি ওড়াচ্ছে বন্ধুদের সাথে ঘোরাঘুরি ঘোরাঘুরি করছে তার নাম চিল ঘুড়ি এবং বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয় এবং বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ ঘুড়ি উড়াচ্ছে ঘুড়ি ওড়ানো কোরিয়ান টেকনিক্যাল এবং বাতাসে উড়বে যেন মানুষের মন জুড়িয়ে দেবো মনের মানুষ ঘুড়ি উড়ানো দেখতে অনেক পছন্দ করে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আজ আমি আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবিতে দেখা হয়েছে আশাকরি ছবিতে আপনাদের খুব ভাল লাগবে না এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে গতকাল 14 তারিখ ঈদের দিন শুক্রবার ঈদের নামাজ শেষ করে মানুষ যখন তাদের বাড়ির দিকে ফিরে যায় তখনই প্রচুর পরিমাণ বৃষ্টি হয় চট্টগ্রাম এবং সেই বৃষ্টি এত পরিমান হয়ে ওঠে যে রাস্তার মাঝে প্রায় হাঁটু সমান পানি উঠে যায় এবং ঈদের দিন এত পরিমান পানি হয়েছে যাতে মানুষের খুশির ঈদ একটু পানিতে ধুয়ে গেছে কেননা ঈদ মানে খুশি ঈদ মানে আনন্দ আনন্দের দিনে আল্লাহর দেওয়া বৃষ্টি মানুষের মাঝে ঈদ খুব ভালো কাটলো না এমনটাই বোঝাচ্ছে কেননা চট্টগ্রামে এত পরিমান পানি হয়েছে যাতে মানুষ বাড়িতে না বাইরে হতে পারে যেমন রাস্তার মাঝখানে গাড়িঘোড়ায় চলতে পারবে না তখন তারা বাড়িতে বের হবে কিসের জন্য এই জন্য তাদের কালকে জিতেছে এমন ভাবেই কেটে গেছে এবং এত পরিমান বৃষ্টি কত কাল 14 তারিখ শুক্রবার সাড়ে নয়টার দিকে প্রচুর পরিমাণ পানি হয়েছে এবং সেই দৃশ্য আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে কারণ এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি দোকানে দোকানে দোকানে এবং এখানে আরো অনেক কিছুই অনেক কিছুই বিক্রয় করা হয় যেমন ইসপিরিট সিগারেট আরো ইত্যাদি ইত্যাদি জিনিস বিক্রি করে থাকে এই দোকানটি খুব জনপ্রিয় হিসাবে আমাদের দুনিয়ার বাজারে মানুষ চেনে জানে জানা এই দোকানের মূলত হলো ফ্লেক্সি লোডের দোকান এবং বিকাশের দোকানে দোকানে লেনদেন করা হয় এবং কিভাবে বিকাশ থেকে লেনদেন করে এবং মানুষের মিলন করে তাদের জন্য এই মানুষটার এখানে প্রচণ্ড ভিড় হয় এবং এইতো খানের এইচডি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরার চেষ্টা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল এমডি হাফিজ আশাকরি ছবিটি দেখে খুবই ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে মামা ভাগ্নে দীর্ঘদিন বেশ দুরুত্ব এবং অনেক দূরে তারা থাকতো কিন্তু আজকে ঈদ এবং এই ঈদের মাধ্যমে তাদের দেখা হয়েছে এবং তারা একে অন্যের সাথে কোলাকুলি করছে এবং একে অন্যের সাথে ছবি তুলছ এবং সেই মুহূর্তে একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে প্রায় সমবয়সী এবং তাদের পরিচয় এবং তারা প্রতিনিয়ত তাদের সাথে মোবাইলে কন্টাক হয় এবং তারা একে অন্যের সাথে দেখা করতে পারে না যেহেতু ওরা দুইজন দুই প্রান্ত থাকে এজন্য বছরের কয়েকটা দিন এদের মাধ্যমে ফিরে আসে যেমন রোজার ঈদের সাথে কথা বলতে পারে এবং একে অন্যের সাথে বন্ধুর মতো চলতে পারে এবং সেই এবং সেইদিন মাধ্যম দিয়ে আপনাদের মাঝে ছবিটি তুলে ছবিটি আপনার
হাই বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে ঈদের দিন হাজির হল এমডি হাফিজার আশা করি এই ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে ঈদের দিন মানুষ বিভিন্ন রকমের আইটেম রান্না করে থাকে এবং কেউ সেমাই-চিনি পায়েস রান্না করে থাকে এবং যাদের আবার একটু টাকা পয়সা বেশি তারা এসব গুলো রান্না করে থাকে এবং তার পাশেও তারা রান্না করে থাকে বিরানি তিয়ারি এমন কিছু ভাল রান্না করে থাকে গরুর মাংস দিয়ে এবং এই একটি হাড়িতে দেখা যাচ্ছে এখানে কিছু গরুর মাংস আর মুরগির ডিম দিয়ে তারা বিরানী ভাত তৈরি করেছে এবং তারা এটি খাবে ঈদের দিন মজা করে এবং তারই একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে এই ছবিটি দেখে এবং ঈদের দিন মানুষ খুবই আনন্দ করে থাক এবং তার আনন্দ করে খেয়ে থাক এবং বন্ধুবান্ধব সাথে করে নিয়ে তারা অনেক ধরনের মজা করে থাকে এবং খাওয়ার মজাটাই বেশী করে থাকে কেন ঈদের দিন সেমাই নুডুলস খেয়ে থাকে এবং তার সাথে বিরানি তাড়া খেয়ে থাকা আশাকরি ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে বছরের শ্রেষ্ঠ দিনের একটি চাঁদ ছবি নিয়ে হাজির হলাম আপনাদের মাঝে আশা করি এই ছবিটি দেখে আপনাদের খুব ভাল লাগবে না কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে বছরের মুসলমানের সবচাইতে বড় একটি উৎসবের দিন গতকাল আর আজকে সন্ধ্যায় তার চাঁদ দেখা গেছে এবং সেই চাঁদের ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে যেহেতু এই ছবিটি খুবই দেখা যাচ্ছে কেন চারটা অনেক দূরে মোবাইলের ক্যামেরা ভালো বোঝানো যায়না এই জন্য যাওয়া উঠেছে তাই আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে এবং মুসলমানদের সবচেয়ে আনন্দের দিন রমজানের শেষে এক দিন ঈদের দিন তারা খেয়ে থাকে সেমাই পায়েস লুডুস ইত্যাদি ইত্যাদি ধরনের জিনিস রান্না করে তারা নিজেরাও এবং তাদের বন্ধু-বান্ধবদের দাওয়াত দেন এবং এই দিনটা খুবই ভালো হয় এবং নামাজ শেষে তারা একে অন্যের সাথে কোলাকুলি করে ঈদ মোবারক জানাই এবং সেই দিনেরই একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে এবং এই ঈদের দিনে আপনাদের সবাইকে জানাই ঈদ মোবারক সাতক্ষীরা বাংলাদেশ
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম এমডি হাফিজার আশা করি এই ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে একটি খাটের ছবি এবং এই খাটের উপরে জাতক বলে এবং এই দশকের একটি সম্পূর্ণ সাপের মতন এবং একটি উপরে থাকে এবং এটা খুবই আকর্ষণীয় কারণে এমন পরিবেশে তৈরি করে না কিন্তু এই যে মানুষটিকে দেখতে পারছেন সম্পূর্ণভাবে একটি আলাদা ভাবে এই জিনিসটি তৈরি করেছে এবং তাকে এর উপরে শুতে ভয় করে না এবং তার একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হলো আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেন এই ছবিটি খুবই আনকমন একটি ছবি কেননা এমন ভাবে কেউ খাটের জাজিম অথবা বালি কোলবালিশ কেউ বানায় না কিন্তু এই মানুষটি তা বানিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে এবং তার উপর এসে প্রতিদিন শুয়ে থাকে এবং তার এখন কোন সমস্যা হয়না যে প্রতিনিয়ত এমন ভাবে শুয়ে থাকে তখন তার অভ্যস্ত হয়ে গেছে এর উপরে এবং তার এই ভয়ানক জায়গা টিস্যুতে তার কোনো সমস্যা হয় না এবং খুবই নতুন একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের খুব ভাল লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন আজ আমি আপনাদের মাঝে নতুন নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলামএমডি হাফিজ আশা করি এই ছবিটি আপনাদের কাছে ভাল লাগবে কারণ এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে মুসলমানদের হেফাজত একটি ঘর মসজিদ বাবরি মসজিদ কত সুন্দর দেখতে লাগছে তো আপনার শরীর মর্দন করতে পারবেন এবং আল্লাহর এই মসজিদটি মুসলমানরা এবং তারা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য তারা এখানে এসে নামাজ পরে এবং আল্লাহর কাছে দোয়া প্রার্থনা করা যাতে তারা সুখী এবং ভালো থাকতে পারে এবং এই মসজিদটি এত সুন্দর ভাবে বানানো হয়েছে তা দেখে মন ভরে যায় এবং সে আরেকটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন কেন না আপনাদের মাঝে আমি একটি নিউ নতুন ছবি নিয়ে হাজির হল ইন্ডিয়া হাফিজ আশাকরি ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে গত দুইদিন আগে আমাদের চলে গেল এবং এই মাসে মায়ের প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে কিছু কৃষক মিলে তাদের ধান কেটে ধান কৃষকের ক্ষেতে একটি মায়া নামটি আঁকানো হয় এবং এই মারা গিয়েছে অনেক ভাইরাল হয়েছে এবং এই মা নামটি সে শুধুমাত্র আমাকে ভালোবেসে গেছে এবং সেটা হলোকৃষির ধানক্ষেতে মানামটি এদেশে খুবই নাম কামিয়েছে এবং তার এলাকায় তার উপরে ভালোবাসার দেখা এবং তার মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে মানুষজন তাকে খুবই শ্রদ্ধা করি এবং তার ভালোবাসাকে আরো বেশি অর্জন করতে পেরেছে এই মাসে মায়ের প্রতি ভালোবাসা দেখি এবং তারই একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হয়েছে আশা করি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হলাম গিয়ে হাফিজ আশা করি এই ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে রিকশায় করে একসাথে চার বন্ধু যখন যাচ্ছিল হঠাৎ করে পুলিশ এসে তাদের কে আটকায় এবং তারা বলে যে এখন লকডাউন এর সময় তোমরা একসাথে চারজন কেন উঠেছে এবং একজনের মুখে মাছ নেই এবং সে তার গেঞ্জি দিয়ে মাটিতে ফেলে এবং সেই সময় আরেকটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যায় এখন বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্ক এবং সেই আতঙ্কে সব দেশেই লকডাউন চলে আসে এবং এখন বর্তমান সময় ইন্ডিয়ায় প্রচন্ডভাবে লকডাউনে মানুষ মরে যাচ্ছে এবং ইন্ডিয়ার পার্শ্ববর্তী দেশ বাংলাদেশেও এমনটি হতে পড়ে এজন্য বাংলাদেশে সাময়িকভাবে লকডাউন ঢেকে দেয় এবং সেই লকডাউন নামে নেওয়ার কারণে আজ তার বন্ধুকে পুলিশ ধরে নিয়ে তাদেরকে জরিমানা করে এবং সেই সমাজের একটি চিত্র আপনাদের মাঝে তুলে ধরা হচ্ছে আশা করি চিত্রটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে নতুন একটি ছবি নিয়ে হাজির হল এমডি হাফিজার আশা করি এই ছবিটি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে বিশাল বড় এশিয়া মহাদেশের মধ্যে একটি বাংলাদেশে মসজিদের মিনার তৈরি করা হয় এবং ব্যাপক ব্যয় বহুল খরচ করা হচ্ছে এই মিনার দিতে এবং এই ব্যানারটি অত্যন্তশুক্র এবং দক্ষতার সাথে এই মিনারটি তৈরি করা হচ্ছে এবং মিনারটি খুবই সুন্দর ভাবে তৈরি করা হচ্ছে এবং এশিয়া মহাদেশের মধ্যে এই প্রথম বাংলাদেশে এত বড় একটি মিনারের পরিকল্পনা নিয়েছে মুসলিম ভাইয়েরা এবং তারা চেষ্টা চালাচ্ছে বেশ কিছুদিনের মধ্যেই মিনারটি তৈরি করা হয়ে যাবে এবং এই মিনারটি এশিয়া মহাদেশের ভিতরে একটি নাম হয়ে যাবে যে বাংলাদেশে এত বড় এবং এত সুন্দর একটি মিনারের ছবি দেওয়া হয়েছে এবং এটা হল মসজিদের মিনারের উপরে থাকবে শুধুমাত্র মাইক আর কিছু না শুধু এটা দেখার জন্য এবং সৌন্দর্যের জন্য একটি করা হচ্ছে এবং বাংলাদেশ এত বড় একটি ব্যয়বহুল খরচ করে ইসলামপন্থী মানুষেরা এত সুন্দর করে মসজিদের উপর একটি মিনার তৈরি করছে এবং তার একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধোরো আশা করি এই ছবিটি দেখে আপনাদের খুবই ভালো খুবই ভালো লাগবে
হ্যালো বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন এবং আপনাদের মাঝে হাজির হলো একটি নিউ ছবি নিয়েই এমডি হাফিজ আশা করি এই ছবিটি আপনাদের খুব ভাল লাগবে কেননা এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে সুন্দর একটি বিল্ডিং বিল্ডিং এর কার্নিশ একটি গাছ উঠেছে এবং এই গাছটি হলো একটি রাস্তার পাশে সরকারি গাছ কাটার কোন অনুমতি নেই এইজন্য তারা বিল্ডিং করতে খুবই অসুবিধায় পড়ে যায় এবং সেই মুহূর্তে তাদের মাঝে একটি বুদ্ধি এলো গাছটায় বিল্ডিং এর ভিতর দিয়ে উঠে যাবে এবং বিল্ডিং এর কোন ক্ষতি হবে না এবং সেই জন্য তারা এমন একটা পরিকল্পনা করে এবং তাদের বেলকুনির পাশ দিয়ে সুন্দর করে গাছের মতন গোল করে তারা ফাঁক দিয়ে ছাদ দিয়ে উঠে গেছে এবং তারই একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরার আশাকরি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে কেননা এই ছবিটি দেখতে খুবই অসাধারণ কেন এরকম এত সুন্দর একটি সুন্দর একটি গাছ উঠেছে এবং এজন্য দেখতে খুবই ভালো লাগছে এবং সেই ভালো লাগার একটি ছবি আপনাদের মাঝে তুলে ধরার আশাকরি আপনাদের খুবই ভালো লাগবে

動画