写真

মুসলমান মানুষের মৃত্যুর পর তার আত্মার শান্তির জন্য তার এলাকার মানুষ এবং আত্মীয়স্বজন দোয়া অনুষ্ঠান এবং খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন করা হয়-এটিকে আমরা মিলাদ বলে ডাকি।আজ শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটিরদিন, আমারা আমাদের গ্রাম থেকে ২০ জন লোক মিলে পাশের গ্রাম "বালিথায়" আত্মীয়ের বাড়িতে মিলাদ অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম।আমরা সেখানে গিয়ে খাবার পরিবেশনের কাজে সহায়তা করেছিলাম।ওখানে প্রায় ৪০০০ মানুষের খাবারের আয়োজন করা হয়েছিলো এবং আনুমানিক ৩০০০ লোক হয়েছিলো।ওখানে ভাত, ডাউল এবং ব্রয়লার মুরগির গোশতো দিয়ে এই খাবারের আয়োজন হয়।সকলের খাওয়ার পরে আমরা খেয়েছিলাম কেননা আমরা খাবার পরিবেশনের দায়িত্বে ছিলাম, আমার খুব ক্ষুধা লেগেছিলো এবং বিকাল ৪ টার সময় আমরা ভাত খেয়েছিলাম।ছবিতে রান্না করা এবং খাবার পরিবেশনের সময় মানুষের লাইন অনুযায়ী বসার দৃশ্য দেখানো হয়েছে।
আজ আমার দিনটি খুবই কঠিন কেটেছে।আজ সকালে ঘুম থেকে উঠে সকালের নাস্তা শেষ করে আমি আমার ফুফাতো ভাই সেলিমের (এ্যাডমিন রায়হানের বড় ভাই) চিকিৎসার জন্য আমাদের নিকটবর্তী সাতক্ষীরা শহরে "হার্ট ফাউন্ডেশন" নামে একটি ক্লিনিকে যায়।আমি ক্লিনিকে পৌছায় সকাল ১১ টায়।সেখানে গিয়েয় আমরা টিকিট কাটি এবং আমাদের সিরিয়াল ছিলো ২। সকাল ১২ টার সময় ডাক্তার আসে এবং সেলিম ভাইকে দেখে এবং কিছু পরিক্ষা করতে বলা হয়।আমরা পরিক্ষাগুলো শেষ করি দুপুর ১:৩০ মিনিটের দিকে এবং দুপুর 3:30 মিনিটে আমরা পরিক্ষার রিপোর্টগুলো হাতে পাই এবং রিপোর্টগুলো ডাক্তারের কাছে জমা দেয়। সন্ধ্যা ৭ টার সময় আমাদের সিরিয়াল আসে এবং রিপোর্টগুলো দেখে ডাক্তার কিছু ঔষধ খেতে পরামর্শ দেন।পরবর্তীতে আমরা নিকটবর্তী ঔষধের দোকান থেকে উক্ত ঔষধগুলো ক্রয় করে বাড়িতে আসার জন্য গাড়িতে উঠি এবং রাত ৯ টার সময় বাসায় পৌছায়।

সত্যি দিনটি খুব কঠিন ছিল কেননা আমরা দুপুরে গোছল করতে পারিনি, রাত নয়টার পর আমরা বাড়িতে এসে গোসল করেছি এবং ক্লিনিক প্রচুর রোগির ভীড় থাকায় আমরা বেশ বিরক্ত হয়েছিলাম।এছাড়া আমরা দুপুরে ক্লিনিকের পাশের একটি হোটেল থেকে খাবার খেয়েছিলাম যা সত্যি খেতে ভাল ছিলোনা আমরা এতেও বিরক্ত হয়েছিলাম😑😖😖😖

আমি আজ বেশ ক্লান্ত আমি মানুষের ভীড়ে বিরক্ত হয়ে ছবি তুলতেও ভুলে গিয়েছি😖😑,আমি এটি ব্লগে পোস্ট করতাম কিন্তু আমার কাছে যথেষ্ট ছবি নেই😭
ইলেকট্রনিক জিনিস বর্তমানে বহুল চাহিদা।আমাদের নিকটবর্ত্তী বাজারে কয়েকটি ইলেকট্রনিকসের দোকান আছে।আমি আমার নতুন ঘরের ওয়েরিংয়ের জন্য বাজারে গিয়েছিলাম আমার সাথে "Sa Ashik Vai" ছিলো।আমি সেখানে দেখেছি ইলেকট্রনিকসের দোকানে সবসময় প্রচুর ভীড় থাকে যা দেখে সত্যি আমি আশ্চর্য হয়েছি এবং আমার কাছে এটি ভালোও লেগেছে কারণ দিনদিন বাংলাদেশের প্রত্যেকটি গ্রামে বিদ্যুৎ পৌঁছে যাচ্ছে এটায় তার বাস্তব প্রমান।এই দোকানটির নাম "বিসমিল্লাহ ইলেকট্রনিকস" দোকানটি ব্রাহ্মরাজপুর বাজার,সাতক্ষীরা, বাংলাদেশ সংলগ্ন অবস্থিত।এখানে সকল প্রকার ইলেকট্রনিকস সামগ্রী নায্য মূলে পাওয়া যায়।
ব্যাডমিন্টন খেলা আমাদের দেশে প্রচুর জনপ্রিয় ।শীতকালের প্রথম দিকে ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু হয়। আমরা প্রতি বছর শীতকালেরব্যাডমিন্টন খেলা শুরু করি । ব্যাডমিন্টন খেলা খুব ব্যয়বহুল তারপরও আমাদের দেশের কিশোররা এটি খেলতে খুব ভালোবাসে আমিও এর ব্যতিক্রম নয়।আমরা এখান থেকে দেড় মাস আগে ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু করি এবং এখনো পর্যন্ত প্রতিদিন খেলা করি। স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য ব্যায়াম করা অন্যতম বিভিন্নভাবে ব্যায়াম করা যেতে পারে এর মধ্যে খেলাধুলা অন্যতম, তাই আমরা খেলাধুলা কে বেছে নিতে পারি স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য।আমি এই ছবিটি যখন তুলেছি তখন আমাদের মাঠে তিনজন খেলা করছিলো ।এখানে আছে রউফ, লালটু এবং সাকিব এরা সবাই রিলিজ সোশ্যাল মিডিয়ার সদস্য। আমরা ব্যাডমিন্টন খেলার আন্তর্জাতিক নিয়ম হিসেবে মাঠ কেটেছি। মাঠ চারকোনা দেখা যাচ্ছে এবং মাঠের মাঝ বরাবর একটি জাল টাঙানো আছে এবং তার দুই পাশে লাইট ব্যবস্থা করা হয়েছে যা বিদ্যুতের মাধ্যমে জ্বলে। এই মাটি অবস্থিত সাতক্ষীরা খুলনা বাংলাদেশ।
গতকাল রিলিজ বাংলাদেশ দল বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চল সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার হাজরাখালি,মাড়িয়ালা ইউনিয়নের কলিমাখালি গ্রামে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের জন্য সাহায্য নিয়ে যায়।সেখানে নদীর বাধগুলো ভেঙে গেছে যাতে করে গ্রামের ভেতর নদীর পানি ঢুকে ঘরবাড়ি প্লাবিত হয়েছে।তাদের ঘর নেই খাবার নেই তারা এখন অসহায়😥 সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন অঞ্চল থেকে তাদেরকে সাহায্য করার জন্য মানুষ এগিয়ে আসছে।রিলিজ দলের পক্ষ থেকে সেখানে যেতে পেরে এবং তাদের হাতে সাহায্য করতে পেরে আমরা খুশি।          

সবাইকে, আপনাদের সকলের দোয়া এবং আল্লাহর অশেষ রহমতে আমরা সুষ্ঠভাবে অসহায় মানুষদের বাড়িতে গিয়ে হাতে হাতে সহযোগিতা পৌঁছে দিয়েছি।

তাদের জন্য আমাদের সাহায্য ছিল খুব সামান্য তবে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি আশাকরি আমাদের মতো অনেকেই তাদের এই দু'দিনে তাদের পাশে এগিয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, আমরা সেখানে সাহায্য পৌঁছেদিয়েছে সাঁতার কেটে এবং নৌকা চড়ে। মানবতার খাতিরে অসহায় মানুষগুলোকে সাহায্য করার সময় আমরা ছবি তোলা থেকে বিরত থেকেছি।

動画

Going shopping with friends
HD 00:15
Travel to Kishoreganj with friends
00:43
Doll village is shown here.
05:35
I love the natural beauty of my country
02:06

ブログ